Latest News

অন্ধ্র, চণ্ডীগড়ে দুই ওমিক্রন আক্রান্তের হদিশ, দেশ জুড়ে সংক্রমিত ৩৫

দ্য ওয়াল ব্যুরো : কয়েকদিন আগে ইতালি থেকে চণ্ডীগড়ে (Chandigarh) আত্মীয়দের সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন এক তরুণ। রবিবার জানা গিয়েছে, তিনি কোভিডের ওমিক্রন ভ্যারিয়ান্টে আক্রান্ত হয়েছেন। অন্ধ্রপ্রদেশের বিশাখাপত্তনমেও এদিন ওমিক্রন আক্রান্ত একজনের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। ওই ব্যক্তি কিছুদিন আগে আয়ারল্যান্ড থেকে ফিরেছেন। নতুন দু’জন ওমিক্রন আক্রান্তের সন্ধান পাওয়ায় ভারতে ওই ভ্যারিয়ান্টে সংক্রমিতের সংখ্যা দাঁড়াল ৩৫।

চণ্ডীগড়ে যে ওমিক্রন আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে, তাঁর বয়স ২০। তিনি ২২ নভেম্বর ভারতে আসেন। ১ ডিসেম্বর তাঁর কোভিড পরীক্ষা হয়। টেস্টে পজিটিভ আসার পরে তিনি বাড়িতেই নিভৃতাবাসে ছিলেন। জিনোম সিকোয়েন্সিং করে জানা যায়, তিনি কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন।

ওই যুবকের দেহে কোনও উপসর্গ নেই। ইতালিতে তিনি ফাইজার ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজ নিয়েছেন। বর্তমানে তাঁকে সরকারি কোয়ারান্টাইন সেন্টারে রাখা হয়েছে। তাঁর সাত আত্মীয়কেও কোয়ারান্টাইনে রাখা হয়েছে। তবে এর আগে আরটি পিসিআর টেস্টে তাঁরা সকলেই কোভিড নেগেটিভ হয়েছিলেন। রবিবার ফের তাঁদের কোভিড টেস্ট হবে।

এর আগে দিল্লি, রাজস্থান, মহারাষ্ট্র, কর্নাটক এবং গুজরাতে ওমিক্রন আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। মহারাষ্ট্রেই সবচেয়ে বেশি মানুষ ওই ভ্যারিয়ান্টে আক্রান্ত হয়েছেন। এদিন হু-র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া শাখার রিজিওনাল ডিরেক্টর জানিয়েছেন, “নতুন ভ্যারিয়ান্ট আসা মানেই এই নয় যে, পরিস্থিতি খারাপ হয়ে উঠেছে।” একইসঙ্গে তিনি বলেন, ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ার পরে পরিস্থিতি যে অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে, তাতে সন্দেহ নেই।

ক্ষেত্রপাল বলেন, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় এখনও সতর্ক থাকতে হবে। অতিমহামারী এখনও শেষ হয়নি। দ্রুত আরও বেশি মানুষকে ভ্যাকসিন দিতে হবে। মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করতে হবে। সামাজিক দূরত্বও বজায় রাখতে হবে।

You might also like