সোমবার, এপ্রিল ২২

চিকিৎসক বলেছিলেন ‘মৃত’, ময়নাতদন্তের ঠিক আগেই বেঁচে উঠলেন সেই যুবক!

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসায় গাফিলতির নজির এ দেশে ভুরিভুরি। তাই বলে জীবন্ত মানুষকে মৃত বলে ঘোষণা!

সিনেমার প্লট নয়, খোদ বাস্তবেই হয়েছে এমনটা। যুবককে মৃত বলে ঘোষণা করে সটান ময়নাতদন্তেও পাঠানো হয়েছিল দেহ। আর সেখানেই হঠাৎ করে জেগে ওঠেন ওই যুবক।

ঘটনাটি ওড়িশার একটি সরকারি হাসপাতালের। পুলিশ জানিয়েছে, ভদ্রক জেলা সদর হাসপাতালে  অচৈতন্য অবস্থায় ভর্তি করা হয় বছর ২৫-এর সুজিত খাটুয়াকে। ধুসুরি থানার অন্তর্গত খাতুপাটনা গ্রামের বাসিন্দা সুজিত হাসপাতালে ভর্তি হন শনিবার। প্রাথমিক ভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ওই যুবককে মৃত বলে ঘোষণা করেন হাসপাতালের চিকিৎসক করুণাকর রাউত। রবিবার সকালে দেহ ময়নাতদন্তে পাঠানোর নির্দেশও দেন তিনি।

চিকিৎসকের নির্দেশ মতোই রবিবার সকালে ময়নাতন্তের জন্য নিয়ে যাওয়া হয় সুজিতের দেহ। কিন্তু আচমকাই উপস্থিত নার্স এবং ডাক্তাররা দেখেন হাত-পায়ে সাড় ফিরছে ওই যুবকের। নড়ছে চোখের পাতাও। তাড়াতাড়ি যুবককে সঠিক চিকিৎসা দেওয়ার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করে নেওয়া হয়।

গোটা ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েছে ওই যুবকের পরিবার। কার্যত রণোক্ষেত্রের আকার নেয় হাসপাতাল চত্বর। চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগে ওই ডাক্তারকে অবিলম্বে গ্রেফতারের আর্জি জানিয়েছে তাঁরা। চিকিৎসককে সাসপেন্ড করার দাবিও জানিয়েছে সুজিতের পরিবার। চিকিৎসক করুণাকর রাউতের বিরুদ্ধে ভদ্রক থানায় ইতিমধ্যেই অভিযোগ দায়ের করেছে যুবকের পরিবার। খবর পেয়েই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হাসপাতালে আসে পুলিশ। চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ওঠা এমন গুরুতর অভিযোগ খতিয়ে দেখতে ইতিমধ্যেই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন জেলাশাসক।

 

 

Shares

Comments are closed.