বুধবার, জুন ১৯

ভাইয়ের খাবার খেয়ে ফেলে বেজায় অনুতাপ দাদার, গলা জড়াজড়ি করে চলল সরি-পর্ব! মুগ্ধতা আর বিস্ময় নেট দুনিয়ায়

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভাইবোনের সম্পর্কে সবচেয়ে সুন্দর হলো তাদের খুনসুটির সম্পর্ক। ভাইয়ের পছন্দের খাবারটা ইচ্ছে করে ফ্রিজ থেকে খেয়ে নেওয়া, কিংবা বোনের শখের পুতুলটা লুকিয়ে রাখা—–ভাইবোনের মধ্যে এসব তো চলতেই থাকে। তার মাঝেই মায়ের ধমক, একে অন্যকে ‘সরি’ বলতে শেখানো সবই সাময়িক ভাবে বিফলে যায়। পরে অবশ্য এক পক্ষের দুষ্টুমি কিংবা রাগ খানিক কমলে, একজন এগিয়ে এসে জড়িয়ে ধরে আর একজনকে ‘সরি’-টা ঠিকই বলে দেয়।

এমন দৃশ্য যে কেবল মানুষ ভাইবোনের মধ্যেই দেখা যায় তা কিন্তু একেবারেই নয়। বরং পশুপাখিদের মধ্যেই এইসব খুনসুটি আর তার পরে ‘সরি’ বলার প্রবণতা বেশ লক্ষ্য করা যায়। যার সাম্প্রতিক নমুনা ইনস্টাগ্রামে বিখ্যাত হওয়া দুই কুকুর ভাই। একজনের নাম ওয়াল্টার। অন্যজন কিকো। দুই ভাইয়ের কান্ড দেখে আপাতত হেসে গড়াচ্ছেন নেটিজেনরা।

কিন্তু কী করেছে এই সারমেয় জুটি?

ইনস্টাগ্রামে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিয়ো-তে দেখা গিয়েছে ভাই কিকো-র গলা জড়িয়ে তাকে সরি বলছে ওয়াল্টার। এমন সুন্দর মুহূর্তের ভিডিয়ো তুলে রেখেছেন তাঁদের মানুষ মা। ওই ভিডিয়ো-তে দেখা গিয়েছে সাদা ধবধবে ওয়াল্টার যেন খানিক বিমর্ষ হয়েই কার্পেটে শুয়ে রয়েছে। ইতিউতি চাইছে বটে। কিন্তু চোখে-মুখে কেমন যেন একটা অপরাধীর ভাব। যেন জেনেবুঝে একখানা অন্যায় করে ফেলেছে সে। খানিক বাদেই শোনা যায় ওয়াল্টারের মায়ের গম্ভীর গলায়। ব্যাস নিজের এক্সপ্রেশনেই ওয়াল্টার বুঝিয়ে দেয় সে ধরা পড়ে গিয়েছে।

ওই মহিলাকে একটু ধমকেই বলতে শোনা যায়, “তুমি কিকো-র খাবার খেয়ে নিয়েছ? যাও ভাইকে সরি বলো।“ মায়ের বকুনিতে অবশ্য প্রথমে বিশেষ পাত্তা দেয় না ওয়াল্টার। ইতিমধ্যেই ভিডিয়োর ফ্রেমে দর্শন দিয়েছে ব্রাউন কালারের কিকো। বেশ ঝলমলে লোম, আর চোখে-মুখে সে কী হাসি। ভাবখানা এমন, “বেশ হয়েছে মা তোকে বকেছে। কী মজা কী মজা। এ বার বোঝ ঠালা।“

প্রথমে অবশ্য মায়ের বকায় পাত্তা না দিলেও খানিক বাদে হাত-পা টেনে উঠে দাঁড়ায় ওয়াল্টার। এগিয়ে যায় কিকো-র দিকে। ও মা! তারপর এ কী করল ওয়াল্টার। সটান সামনের দু’পা দিয়ে জড়িয়ে ধরল ভাইয়ের গলা। তারপর ভাইয়ের মাথায় নিজের মাথা রেখে সে কী আদর। যেন বলছে, “সরি ভাই। তোর খাবারটা খেয়ে ফেলেছি রে। তা বলে তোকে কিন্তু আমি মোটেও কম ভালোবাসি না।“

ওয়াল্টার-কিকোর কাণ্ড দেখে হাসিতে লুটিয়ে পড়েছে নেট দুনিয়া। সকলের মনে খালি একটাই প্রশ্ন, ‘এমন জড়িয়ে ধরে সরি বলা কী ভাবে শিখল ওয়াল্টার? আর তার মানুষ মা-ই বা কী ভাবে এমন ট্রেনিং দিলেন?’ নেটিজেনদের প্রশ্নের জবাবে অবশ্য ওই মহিলা বলেছেন, “আমি ওকে কিছুই শেখাইনি। ছোট থেকে খালি ইউটিউবের বিভিন্ন ভিডিয়ো দেখিয়ে ওয়াল্টারকে জড়িয়ে ধরাটা শিখিয়েছিলাম। তবে ভাইকে জড়িয়ে ধরে সরি বললে যে কিকোর রাগ কমে যাবে—–এমন কিচ্ছু আমি শেখাইনি। শুধু ওকে বলেছিলাম অন্যায় করেছ, ভাইকে সরি বলো। বাকি সবটাই ওয়াল্টারের কীর্তি।“

ওয়াল্টার-কিকোর কীর্তি এখন ভাইরাল ইনস্টাগ্রামে। রাতারাতি সেলিব্রিটি হয়ে যাওয়া এই সারমেয়দের কীর্তি দেখুন আপনারাও।

Comments are closed.