মঙ্গলবার, জুন ২৫

১৪ জন পোষ্যকে নিয়ে হোটেলে থাকতে চেয়েছিলেন মার্কিন পর্যটক! তারপর…..

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মার্কিন মুলুক থেকে ভারতে বেড়াতে এসেছিলেন এক মহিলা। আগে থেকেই আহমেদাবাদের একটি হোটেলে তিনদিনের বুকিং করে রেখেছিলেন। কিন্তু এ দেশে এসে সেই হোটেলে থাকতে গেলে তাঁকে সটান না করে দেয় কর্তৃপক্ষ। জানিয়ে দেয় এই হোটেলে নাকি ঠাঁই হবে না ওই পর্যটকের।

কিন্তু কেন? হঠাৎ এ হেন অদ্ভুত আচরণ কেনই বা করলেন হোটেলের কর্মীরা?

হোটেলের কর্মীরা জানিয়েছেন, মহিলা মোটেও একা আসেননি তাঁদের হোটেলে। সঙ্গে এনেছিলেন নিজের ১৪টি পোষ্যকে। তাদের মধ্যে ছিল ৬টি বেড়াল, ৭টি কুকুর আর একটা ছাগল। পোষ্যবাহিনীকে দেখেই হোটেলের বাকিদের অসুবিধার কথা ভেবে পত্রপাট ওই মহিলাকে বিদায় করতে চেয়েছিল হোটেল কর্তৃপক্ষ। হোটেলের তরফে তাঁকে বলা হয় সেখানে পোষ্যদের রাখার কোনও ব্যবস্থা নেই। কিন্তু মহিলা ছিলেন নাছোড়বান্দা। আগাম বুকিং করে যখন এসেছেন তখন কিছুতেই হোটেল ছেড়ে যাবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।

পোষ্যের প্রতি প্রীতি আছে অনেকেরই। নিজের সাধের পোষ্যকে নিয়ে বেড়াতেও যান অনেকেই। কিন্তু তা বলে একেবারে ১৪টি পোষ্য! তাও আবার সুদূর আমেরিকা থেকে ভারতে এসেছেন মহিলা। হোটেলের এক কর্মীর কথায়, “বাকিদের তো সমস্যা হতেই পারে। সবাই ওঁর মতো পোষ্য নাও ভালোবাসতে পারেন। সমস্যা এড়াতেই ওঁকে আমরা থাকতে দিতে চাইনি।” তবে হোটেল কর্তৃপক্ষের কোনও কথায় শোনেননি ওই বিদেশিনী। সটান পুলিশের খবর দিয়ে দেন তিনি।

এরপর হোটেলে আসে পুলিশ। হোটেলের ম্যানেজার জানিয়েছেন, মহিলা কোনও কথাই শুনতে রাজি ছিলেন না। অগত্যা তাঁকে থাকতে বাধ্য হয় আহমেদাবাদের ওই হোটেল। মহিলার পোষ্যদের জন্য হোটেলের বাকিদের বেশ সমস্যায় পড়তে হয় বলে জানিয়েছে, হোটেল কর্তৃপক্ষ। গত ৯ এপ্রিল ভারতে এসেছিলেন তিনি। ১১ এপ্রিল পর্যন্ত ছিল তাঁর বুকিং। তবে তিনদিন ওই হোটেলে ছিলেন মার্কিন পর্যটক। তারপর আহমেদাবাদ ছেড়ে চলে যান তাঁর নেক্সট ডেস্টিনেশনে।

Comments are closed.