বুধবার, অক্টোবর ১৬

গুরুতর অসুস্থ ৩৩০ কেজির নুরুল, বাড়ির দেওয়াল ভেঙে নিয়ে যাওয়া হলো হাসপাতালে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পাঞ্জাব প্রদেশের সাদিকাবাদের বাসিন্দা বছর ৫৫-র নুরুল হাসান। ওজন ৩৩০ কেজি। শুনে চমকে উঠলেও, এটাই নুরুলের বর্তমান ওজন। যার জন্য ইতিমধ্যেই পাকিস্তানের সবচেয়ে মোটা মানুষের আখ্যা পেয়েছেন নুরুল। স্বাভাবিকের তুলনায় সাংঘাতিক বেশি ওজন হওয়ায় দিনদিন অসুস্থ হয়ে পড়ছিলেন এই ব্যক্তি। তবে এ বার নুরুলকে আনা হয়েছে লাহোরের একটি হাসপাতালে। সেখানেই চিকিৎসা চলবে তাঁর। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে নুরুলের অতিরিক্ত মেদ কিছুটা হলেও কমানোর চেষ্টা করবেন সেনা হাসপাতালের চিকিৎসকরা।

পাকিস্তান সেনার তরফে জানানো হয়েছে জরুরি পরিষেবার সাহায্যে নুরুলকে লাহোরের ওই হাসপাতালে আনা হয়েছে। এই লাহোর থেকে ৪০০ কিলোমিটার দূরে নুরুল হাসানের গ্রাম সাদিকাবাদ। সেখান থেকেই যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে উদ্ধার করা হয়েছে ওই ব্যক্তিকে। ওজনের ভারে নুরুল এতটাই বেহাল যে বাড়ির দরজা দিয়ে আর পাঁচজন সাধারণ মানুষের মতো তাঁকে বের করা সম্ভব হয়নি। দেওয়াল ভেঙে বের করতে হয়েছে নুরুলকে। পাকিস্তানের সেনা প্রধান কামার জাভেদ বাজওয়া জানিয়েছেন, সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে নিজের চিকিৎসার জন্য দেশের সেনাবাহিনীর কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন নুরুল। তারপরেই তৎপর হয় সেনাবাহিনী। রেসকিউ টিম ১১২২-এর বিশেষ প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত সদস্যদের পাঠানো হয় নুরুলকে উদ্ধারের জন্য।

খুবই দ্রুত এবং তৎপরতার সঙ্গে নুরুল হাসানকে আকাশপথে লাহোরের হাসপাতালে নিয়ে এসেছেন সেনাবাহিনীর ওই রেসকিউ টিমের সদস্যরা। এ বার সেখানেই চিকিৎসা চলবে তাঁর। হবে ল্যাপ্রোস্কোপি। মঙ্গলবার প্রাথমিক ভাবে নানা পরীক্ষা-নীরিক্ষার জন্য নুরুলকে নিয়ে আসা হয় লাহোরের সেনা হাসপাতালে। সেখানেই বিভিন্ন টেস্ট করার পর তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে লাহোরের সালামার হাসপাতালে। বাকি অস্ত্রোপচার সেখানেই হবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

তবে বিভিন্ন জায়গায় নুরুল হাসানকে পাকিস্তানের সবচেয়ে মোটা মানুষ বলা হলেও, এই তথ্য নিয়ে দ্বিমত রয়েছে। কারণ ২০১৭ সালে পাকিস্তানেই ল্প্রোস্কোপি হয়েছিল আর এক ব্যক্তির। যার ওজন ছিল ৩৬০ কেজি। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তাঁর ওজন ২০০ কেজির নীচে আনা সম্ভব হয়েছিল। রিপোর্ট বলছে, পাকিস্তানের জনসংখ্যার ২৯ শতাংশের ওজনই স্বাভাবিকের তুলনায় অনেকটা বেশি। এঁদের মধ্যে ৫১ শতাংশ মানুষ আবার ওবিসিটি ক্যাটেগরির অন্তর্ভুক্ত।

Comments are closed.