বৃহস্পতিবার, মার্চ ২১

‘আল্লাহ-উ-আকবর’ স্লোগান তুলে লন্ডনের ব্রিটিশ ইন্ডিয়ানদের উপর হামলা আইএসআই মদতপুষ্ট খালিস্তানিদের

দ্য ওয়াল ব্যুরো : লন্ডনের ভারতীয় দূতাবাসের বাইরে জড়ো হয়েছিলেন বেশ কয়েকজন ব্রিটিশ ইন্ডিয়ান। তাঁদের উপর হামলার অভিযোগ উঠলো পাকিস্তানের আইএসআই মদতপুষ্ট খালিস্তানিদের বিরুদ্ধে। এই হামলায় বেশ কয়েকজন ব্রিটিশ ইন্ডিয়ান আহতও হয়েছেন বলে খবর।

সংবাদসংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, শনিবার ভারতীয় দূতাবাসের সামনে জড়ো হয়েছিলেন ফ্রেন্ডস অফ ইন্ডিয়া সোসাইটি, ইউকে-র প্রতিনিধিরা। তাঁদের জমায়েতের উপর হঠাৎ করেই হামলা চালান ওভারসিজ পাকিস্তানিস ওয়লফেয়ার কাউন্সিল ( ওপিডাবলুসি ) এবং শিখস ফর জাস্টিস ( এসএফজে ), এই দুই সংগঠনের সদস্যরা। ভারতবিরোধী স্লোগান তুলতে থাকেন তাঁরা। এই পুরো ঘটনার ভিডিও করে রাখে কেউ। পরে সেটা প্রকাশ পায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে মাথায় পাগড়ি পরে ‘নাড়া-এ-তকবির’ ও ‘আল্লাহ-উ-আকবর’ স্লোগান তুলতে তুলতে জড়ো হওয়া লোকদের মারধর করছেন তাঁরা।

স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের তরফে জানানো হয়েছে, শান্তি বিঘ্নিত করার অপরাধে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে তারা। পরে তাকে অবশ্য ছেড়েও দেওয়া হয়। জানা গিয়েছে এই দুটি সংগঠন মিলে ভারতে ও কাশ্মীরে সংখ্যালঘু মুসলিমদের উপর হওয়া অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছিল। সেই সময়ই ব্রিটিশ ইন্ডিয়ানদের সদস্যরা সেখানে এলে তাঁদের উপর হামলা চালানো হয়।

সূত্রের খবর, আমেরিকা স্থিত এই খালিস্তানি সংগঠনটি পাকিস্তানের আইএসআই-এর কাছ থেকে সরাসরি সাহায্য পেয়ে থাকে। ‘রেফারেন্ডাম ২০২০’ নামে ভারতবিরোধী একটি কর্মসূচি গোটা বিশ্বজুড়ে চালানোর চেষ্টা করছে এই সংগঠন। কিন্তু লন্ডনে শিখদের কাছ থেকে সমর্থন না পাওয়ায় সেই রাগেই এই কাণ্ড তাঁরা ঘটিয়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে। পাঞ্জাবকে স্বাধীন করার জন্য এই ‘রেফারেন্ডাম ২০২০’ আন্দোলনকে সমর্থন করার জন্য সম্প্রতী একটি চিঠি লিখে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে জানিয়েছিল এই সংগঠন।

১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পরে লন্ডন স্থিত ব্রিটিশ ইন্ডিয়ানরা বিক্ষোভ দেখান। লন্ডনের পাকিস্তান দূতাবাসের সামনে দাঁড়িয়ে পাকিস্তান মূর্দাবাদ-এর স্লোগানও তোলেন তাঁরা। সেই রাগ থেকেই শনিবার এই হামলা হয়েছে, এমনটাও মনে করা হচ্ছে। জানা গিয়েছে, এইসব সংগঠনের হাত ধরেই খালিস্তানি আন্দোলনকে আরও বাড়াতে চাইছে পাকিস্তান। আমেরিকা, ইংল্যান্ড, কানাডা ও অস্ট্রেলিয়াতে থাকা এই সংগঠনের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছে আইএসআই। তাদের আর্থিক সাহায্যও করছে তারা, এমনটাই জানা গিয়েছে।

Shares

Comments are closed.