শুক্রবার, এপ্রিল ২৬

মাটিতে পড়ে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন বৃদ্ধা, সাত ঘণ্টাতেও পৌঁছল না অ্যাম্বুলেন্স

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পড়ে গিয়েছিলেন বৃদ্ধ মা। মারাত্মক চোট পেয়েছিলেন কোমরে। চোট এতই মারাত্মক ছিল যে নড়াচড়ার ক্ষমতাও ছিল না বৃদ্ধার। প্রায় সাত ঘণ্টা ওভাবেই পড়েছিলেন মহিলা। অথচ বাড়ি থেকে মাত্র ১০ মিনিটের দূরত্বে অ্যাম্বুলেন্স সেন্টার থাকলেও বৃদ্ধার কাছে পৌঁছয়নি কোনও অ্যাম্বুলেন্স।

তবে অ্যাম্বুলেন্স পৌঁছনোর আগেই মায়ের কাছে পৌঁছে গিয়েছিলেন ছেলে।

মা আহত হয়েছেন। সেক্ষেত্রে ছেলেই তো সবার আগে দৌড়ে যাবেন। এটাই তো স্বাভাবিক। কিন্তু এখানে ছেলে ছিলেন মায়ের থেকে অনেক দূরে। কার্যত কাঠখড় পুড়িয়ে ঘণ্টা চারেক জার্নি করে তবে মায়ের কাছে পৌঁছতে পেরেছিলেন লন্ডনের বাসিন্দা মার্ক ক্লিমেন্টস। প্রায় ৩২০ কিলোমিটার জার্নি করেছেন মার্ক। বাস, দুটো ট্রেন এমনকী টিউবেও চড়েছেন। তারপর গিয়ে পৌঁছেছেন গুরুতর ভাবে জখম মায়ের কাছে।

মার্ক জানিয়েছেন, তাঁর মা পড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ফোন করা হয়েছিল অ্যাম্বুলেন্সে। কিন্তু ঘটনার প্রায় সাত ঘণ্টা পরেও আসেনি অ্যাম্বুলেন্স। ৭৭ বছরের বৃদ্ধা মার্গারেটকে দীর্ঘ সময় সহ্য করতে হয়েছে চরম যন্ত্রণা। মার্ক জানিয়েছেন, “প্রচণ্ড ঠান্ডার মধ্যে মেঝের উপর দীর্ঘক্ষণ পড়ে কাতরাচ্ছিলেন আমার মা। চোট এতটাই গুরুতর ছিল যে উঠে বসার ক্ষমতাও ছিল না।” মার্ক আরও বলেন, “চরম যন্ত্রণা এবং তীব্র ঠান্ডায় মা এতটাই কষ্ট পাচ্ছিলেন যে বারবার মরে যাওয়ার কথাই বলছিলেন।”

বাড়ি থেকে মাত্র ১০ মিনিট দূরের অ্যাম্বুলেন্স স্টেশন থেকে কীভাবে অ্যাম্বুলেন্স আসতে সাত ঘণ্টারও বেশি সময় লাগলো, এখন তা নিয়েই প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে। যদিও এই ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছে সংশ্লিষ্ট অ্যাম্বুলেন্স কর্তৃপক্ষ।

Shares

Comments are closed.