বুধবার, আগস্ট ২১

#Breaking: পরপর ৮ বার, ধারাবাহিক বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল কলম্বো, নিহত অন্তত ২০৭, আহত ৪০০-র বেশি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সকাল ৮টা ৪৫ মিনিট। শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোর তিনটি গির্জায় চলছিল ইস্টারের প্রার্থনা। হঠাৎ করেই জোরালো বিস্ফোরণ। একটি নয়, পরপর ছ’টি। তিনটি গির্জা ও তিনটি হোটেলে ধারাবাহিক বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল কলম্বো। মুহূর্তের মধ্যে চারদিকে মানুষের আর্তনাদ, রক্ত। তার রেশ কাটতে না কাটতেই বেলা ২টো নাগাদ আবার জোড়া বিস্ফোরণ। এই ৮টি বিস্ফোরণের ঘটনায় অন্তত ২০৭ জনের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন বলে খবর। আহতের সংখ্যা ৪০০-র বেশি। নিহতের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে।

জানা গিয়েছে সকাল ৮টা ৪৫ মিনিট নাগাদ কলম্বোর সেন্ট অ্যান্থনিস চার্চে প্রথম বিস্ফোরণ হয়। এই বিস্ফোরণের রেশ কাটতে না কাটতে কাটুয়াপিটিয়ার সেন্ট সেবাস্টিয়ান চার্চ ও কোচ্চিকাডের একটি গির্জায় পরপর বিস্ফোরণ হয়। এই তিনটি গির্জাতেই সেই সময় ইস্টারের প্রার্থনা চলছিল। প্রার্থনা শুনতে স্থানীয় মানুষদের সঙ্গে অনেক পর্যটকও যোগ দিয়েছিলেন।

এই তিনটি গির্জা ছাড়াও কলম্বোর তিনটি প্রথম সারির হোটেল দ্য শাংগ্রি লা, সিনামন গ্র্যান্ড ও কিংসবিউরি হোটেলেও হয় জোরালো বিস্ফোরণ। জানা গিয়েছে বিস্ফোরণের তীব্রতা একটাই বেশি ছিল যে গির্জার ছাদ উড়ে গিয়েছে। লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছে পুরো এলাকা। চারদিকে শুধুই ছড়িয়ে ছিটিয়ে জিনিসপত্র। পড়ে রয়েছে মানুষের দেহ। আহতদের আর্তনাদ শোনা যাচ্ছে। রক্তের ছিটে চারদিকে।

শ্রীলঙ্কা প্রশাসন সূত্রে খবর, ওই ছয় জায়গায় বোমা বিস্ফোরণের খবর পাওয়ার পরেই সেখানে পাঠানো হয় পুলিশ। পুরো এলাকা ঘিরে ফেলা হয়। সঙ্গে সঙ্গে আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতদের দেহ উদ্ধারের কাজ চলছে। গোটা শ্রীলঙ্কা জুড়েই জারি করা হয়েছে হাই অ্যালার্ট। সিনামন গ্র্যান্ড হোটেলের কাছেই শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিঙ্ঘের বাসস্থান। অতিমধ্যেই জরুরি বৈঠক ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রশাসন সূত্রে খবর, কলম্বোয় মোতায়েন করা হচ্ছে সেনা। এই ঘটনার পিছনে কোনও জঙ্গি কার্যকলাপ থাকতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। পুরো এলাকা জুড়ে চলছে তল্লাশি। এখনও আতঙ্কিত হয়ে রয়েছেন মানুষ। কিন্তু এখনও কোনও জঙ্গি সংগঠন এই ঘটনার দায় স্বীকার করেনি।

ইতিমধ্যেই আত্মীয় পরিজনের ব্যাপারে খোঁজ নেওয়ার জন্য হেল্পলাইন নম্বর চালু করেছে শ্রীলঙ্কা প্রশাসন। সেখানে বসবাসকারী ভারতীয়দের ব্যাপারে খোঁজ নেওয়ার জন্যও আলাদা করে হেল্পলাইন নম্বর চালু করা হয়েছে। এই ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ভারতও। ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ টুইট করে জানিয়েছেন, এই ঘটনায় ভারত সরকার গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। তারা শ্রীলঙ্কার পাশে রয়েছে। তিনি প্রতি মুহূর্তে সেখানকার ভারতীয় হাই কমিশনারের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলছেন।

ফের দুপুর ২টো নাগাদ ফের বিস্ফোরণ হয় কলম্বোর দেহিওয়ালাতে একটি হোটেলে। তার কিছুক্ষণ পরেই ওরুগোদাওয়াট্টায় আরেকটি বিস্ফোরণ হয়। এই দুই বিস্ফোরণে আরও ২জন নিহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। খবর পেয়ে সেখানে নামানো হয় সেনা। কিন্তু পরিস্থিতি ক্রমেই খারাপ হচ্ছে। গোটা দেশের লোক আতঙ্কিত। আর তাই পরিস্থিতি সামাল দিতে কলম্বোতে জারি করা হয়েছে কারফিউ। সাধারণ মানুষকে রাস্তায় বেরাতে বারণ করা হয়েছে। প্রত্যেকটি বড় হোটেল-রেস্তোরাঁতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। দোকান-পাঠ সব বন্ধ রয়েছে। কলম্বোর রাস্তাঘাট শুনশান। খালি বুটের আওয়াজ, অ্যাম্বুলেন্সের সাইরেন।

শ্রীলঙ্কার প্রশাসন সূত্রে খবর, এমনিতেই ৮টি বিস্ফোরণ হয়েছে কলম্বোতে। আর যাতে কোনও বিস্ফোরণ না হয়, সেই জন্য বাড়ানো হয়েছে সুরক্ষা। কারা এই বিস্ফোরণের সঙ্গে যুক্ত সে ব্যাপারেই খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। যদিও এখনও পর্যন্ত কোনও জঙ্গি সংগঠন এই বিস্ফোরণের দায় স্বীকার করেনি। এই ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে সাতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে খবর।

আরও পড়ুন

শ্রীলঙ্কা ব্লাস্ট: ১০ দিন আগেই কলম্বোতে নাশকতার ব্যাপারে সতর্ক করেছিলেন পুলিশ প্রধান

Comments are closed.