বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮

একে একে গায়ে গলালেন ১৫টা জামা! কিন্তু কেন……

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ব্যাগের অতিরিক্ত ওজনের জন্য প্লেনে ফাইন দিতে রাজি ছিলেন না এক যাত্রী। তাহলে অতিরিক্ত জিনিসপত্র বাড়িতেই রেখে এলেই হতো। কিন্তু না ওই ব্যক্তি তা করেননি। উল্টে একসঙ্গে ১৫টা জামা পরেছেন। আর এতগুলো জামা একসঙ্গে গায়ে চাপানোর পর তাঁকে ঠিক কেমন দেখতে লাগছিল, সেটা আন্দাজ করাই যায়। 

শুনতে অবাক লাগলেও ঠিক এমনটাই হয়েছে বাস্তবে। জানা গিয়েছে, ওই ব্যক্তির নাম জন ইরভিন। EasyJet- নামক এক সংস্থার বিমানে সফর করার কথা ছিল তাঁর। গ্লাসগো বিমানবন্দরে এসেওছিলেন তিনি। বিমান ধরবেন বলে। কিন্তু বিমানে সওয়ার হওয়ার আগেই নিরাপত্তাকর্মীরা জানিয়ে দেয় যে নির্ধারিত সীমার তুলনায় বেশি লাগেজ রয়েছে তাঁদের কাছে। এসব নিয়ে যেতে হলে কিছু ফাইন লাগবে।

এ কথা শুনেই বেঁকে বসেন পরিবারের কর্তা জন ইভরিন। জানা গিয়েছে, এডিনবার্গ যাওয়ার কথা ছিল জন এবং তাঁর পরিবারের। ৮ কিলো লাগেজ নেওয়ার অনুমতি ছিল তাঁদের। কিন্তু জন এবং তাঁর পরিবারের বাকি সদস্যদের সব লাগেজ মিলিয়ে মোট ওজন ছিল ৮ কিলোর বেশি। তাই নিয়ম মেনেই তাঁদের থেকে ফাইন দাবি করে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। কিন্তু অতিরিক্ত টাকা খসাতে মোটেও রাজি ছিলেন না জন। বরং পকেট থেকে টাকা বের করার বদলে ব্যাগ থেকে জামা-কাপড় বের করে পরতে শুরু করে দেন তিনি। একসঙ্গে পরে ফেলেন ১৫টি জামা।

জন ইভরিনের কাণ্ড দেখে হতভম্ব হয়ে যান বিমানবন্দরে থাকা কর্মীরা। প্রাথমিক আকস্মিকতা কাটিয়ে হাসিতে লুটিয়ে পড়েন তাঁরা। কেউ কেউ জনের কীর্তিকলাপ ভিডিয়ো-ও করে নেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় নিমেষে ভাইরাল হয় সেই ছবি এবং ভিডিয়ো। হাসির রোল উঠেছে নেট দুনিয়াতেও।

এর আগে নাটালিয়া ওয়েন নামে বছর তিরিশের এক মহিলাও এমন কাণ্ড করেছিলেন। তিনি আবার সাতখানা জামা এবং দু-খানা শর্টস গলিয়েছিলেন নিজের গায়ে। উদ্দেশ্য একটাই। ফাইন দেবেন না। নেটিজনরা বলছেন, নাটালিয়ার থেকে অনুপ্রেরণা পেয়েই বোধহয় মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিলেন জন। সুযোগ খুঁজছিলেন এমন ট্রিক অ্যাপ্লাই করার। অবশেষে এলো সেই দিন। যোগ্য গুরুর সুযোগ্য শিষ্যের মতোই ট্রিক অ্যাপ্লাই করে দিলেন জন ইভরিন।

ভিডিয়ো সৌজন্যে ইউটিউব। 

Comments are closed.