শনিবার, মে ২৫

১৫৭ জনকে নিয়ে ভেঙে পড়ল ইথিওপিয়ার বিমান, ছিলেন চার ভারতীয়ও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ফের বড়সড় বিমান বিপর্যয়! মাঝ আকাশে উড়ানের মাঝেই ভেঙে পড়ল ইথিওপিয়া এয়ারলাইন্সের একটি বিমান। জানা গিয়েছে, বিমানে ছিলেন ১৪৯ জন যাত্রী। তাঁদের মধ্যে ছিলেন চার ভারতীয়ও। এ ছাড়াও ছিলেন ৮ জন ক্রু মেম্বার। আশঙ্কা করা হচ্ছে, কেউ বেঁচে নেই বিমানযাত্রীদের মধ্যে।

ইথিওপিয়া কর্তৃপক্ষ নিহত যাত্রীদের দেশের নাম ও সংখ্যার তালিকা প্রকাশ করেছে। জানা গিয়েছে, এতে কেনিয়ার ৩২, কানাডার ১৮, ইথিওপিয়ার ৯, চীনের ৮, ইতালির ৮, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৮, বিট্রিশ ৭, ফ্রান্স ৭, মিসর ৬, নেদারল্যান্ডের ৫, জার্মানির ৫, স্লোভাকিয়ার ৪, ভারতীয় ৪, রাশিয়ার ৩, সুইডেনের ৩, অস্ট্রেলিয়ার ৩, মরক্কোর ২, ইসরাইলের ২, পোল্যান্ড ২, বেলজিয়ামের ১, উগান্ডার ১, ইয়েমেনের ১, সুদানের ১, টোগোর ১, মোজাম্বিকের ১, নরওয়ের ১, রুয়ান্ডার ১, সৌদি আরবের ১, সুদানের ১, সোমালিয়ার ১, সার্বিয়ার ১, মোজাব্বিকের ১, আয়ারল্যান্ডের ১, ইন্দোনেশিয়ার ১, ডিজিবোতি ১ ও বেলজিয়ামের ১ জন ছিলেন।

দুর্ঘটনার কিছু ক্ষণ পরে কানাডার ১৮ জন, ইথিওপিয়ার ৯ জন এবং ইতালি, চিন এবং আমেরিকা– প্রতিটি দেশের অন্তত ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছিল। তবে পরে খবর মেলে, কারওই কার্যত বেঁচে থাকার সম্ভাবনা নেই।

ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবা শহর থেকে কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবি যাচ্ছিল ফ্লাইট ইটি-৩০২। স্থানীয় সময় রবিবার সকাল আটটা আটত্রিশ মিনিটে এ দিন রওনা হয় এই বিমান। কিন্তু উড়ানের ৬ মিনিট পরেই যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, র‍্যাডারেও নজরে আসছিল না ওই বিমান। এয়ার ট্র্যাফিক কন্ট্রোলের সঙ্গেও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিল। সূত্রের খবর, আদ্দিস আবাবা শহরের ৬০ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে বিশোফটু গ্রামের কাছে বিমানটি ভেঙে পড়েছে।

জানা গিয়েছে, রবিবার সন্ধ্যায় নাইরোবিতে রাষ্ট্রসংঘের পরিবেশ সংক্রান্ত একটি অনুষ্ঠান রয়েছে। অনুমান, হয়তো এই বিমানে ওই অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন এমন যাত্রীও ছিলেন। ঠিক কী কারণে বিমানটি ভেঙে পড়েছে সে বিষয়ে এখনও কিছু জানায়নি ইথিওপিয়া এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ। যান্ত্রিক ত্রুটি, নাকি অন্য কোনও কারণে ভেঙে পড়েছে এই বিমান তা এখনও জানা যায়নি। ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু করেছে বিমান কর্তৃপক্ষ।

ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে টুইট করে শোক জানানো হয় এই ঘটনায়।

Shares

Comments are closed.