মঙ্গলবার, জানুয়ারি ২১
TheWall
TheWall

#Breaking: ইস্টার সানডে’র পরের দিন আবার বিস্ফোরণ কলম্বোয়

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রক্তান্ত ইস্টার সানডে’র ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ফের বিস্ফোরণ শ্রীলঙ্কায়। কলম্বোর সেন্ট অ্যান্টনিস চার্চের কাছে এই বিস্ফোরণ হয়েছে বলে খবর। জানা গিয়েছে, বোমা নিষ্ক্রিয় করার সময় বিস্ফোরণটি ঘটে। কলম্বো পুলিশ জানিয়েছে, রবিবারের বিস্ফোরণের পর সোমবার একটি বাস স্ট্যান্ড থেকে ৮৭ টি বম্ব ডিটোনেটর (বোমা বিস্ফোরণের রিমোট জাতীয় যন্ত্র) উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রবিবার সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ প্রথম বিস্ফোরণ হয় কলম্বোতে। তারপর গতকাল ৬ ঘণ্টায় পরপর ৮ বার ধারাবাহিক বিস্ফোরণে কেঁপে উঠেছিল শ্রীলঙ্কার রাজধানী। তিনটি পাঁচতারা হোটেল এবং তিনটি গির্জায় বিস্ফোরণ হয়। বিস্ফোরণের তীব্রতা এতটাই বেশি ছিল নিমেষে শ্মশান হয়ে যায় গোটা এলাকা। ভেঙে গিয়েছে কলম্বোর শতাব্দী প্রাচীন ক্যাথলিক গির্জা সেন্ট অ্যান্টনিস। ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে ‘সিনামন গ্র্যান্ড’, ‘সাংগ্রি লা’ এবং ‘কিংসবেরি’—–এই তিনটি পাঁচতারা হোটেলে।

এই ঘটনার ২৪ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই ফের বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল কলম্বো। সেন্ট অ্যান্টনিস গির্জার কাছেই দাঁড়ানো ছিল বিস্ফোরক বোঝাই একটি ভ্যান। সূত্রের খবর, গির্জার কাছেই একটি নতুন বোমার খোঁজ পেয়েছিল পুলিশ। সেটি নিষ্ক্রিয় করার সময়েই বিস্ফোরণ ঘটে। যদিও এই ঘটনায় কোনও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। ইতিমধ্যেই শ্রীলঙ্কায় জরুরি অবস্থা জারি করেছেন দেশের রাষ্ট্রপতি সিরিসেনা।

গতকালের বিস্ফোরণে নিহত হয়েছেন ২৯০ জন। আহতের সংখ্যা ৫০০ ছাড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৬ ভারতীয়রও। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে শ্রীলঙ্কা প্রশাসন। আতঙ্কের রেশ কাটার আগেই ফের কেঁপে উঠেছে কলম্বো। এখনও এই হামলার দায় স্বীকার করেনি কোনও জঙ্গি সংগঠন। তবে অনুমান, শ্রীলঙ্কার স্থানীয় ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন ন্যাশনাল তৌহিত জামাত-এর হাত রয়েছে এই নাশকতায়। যদিও এ ব্যাপারে সরকারি ভাবে কিছু জানায়নি শ্রীলঙ্কা সরকার। তবে এই তথ্য প্রকাশ্যে আসার পরেই উপকূলের নিরাপত্তা জোরদার করেছে ভারত। সতর্ক করা হয়েছে উপকূলবর্তী নিরাপত্তাবাহিনীকে।

Share.

Comments are closed.