মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২

কাত হয়ে পড়লেও, অক্ষত আছে বিক্রম! যোগাযোগের চেষ্টা চলছে আপ্রাণ, ইসরো সূত্রের বড় খবর

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অরবিটারের পাঠানো ছবি বলছে, প্রায় ঠিকঠাকই নেমে গিয়েছিল চন্দ্রযান ২-এর ল্যান্ডার বিক্রম। সামান্য এ দিক-ও দিক হওয়ায় সফল সফ্ট ল্যান্ডিং হয়নি তার। কিন্তু হার্ড ল্যান্ডিংয়ের কারণে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলেও, ল্যান্ডার বিক্রম এখনও আস্ত রয়েছে। ভাঙেনি। তবে এটি একটু কাত হয়ে যাওয়া অবস্থায় রয়েছে। সেই কারণেই পুনর্যোগাযোগ করা যাচ্ছে না কি না, তা অবশ্য নিশ্চিত করেননি ইসরো কর্তৃপক্ষ।

শুধু তা-ই নয়। ইসরোর একটি সূত্র দাবি করেছে, চাঁদের পিঠে যেখানে নামার কথা ছিল বিক্রমের, সেখান থেকে মাত্র আধ কিলোমিটার দূরের শেষ অবস্থান চিহ্নিত করা গিয়েছে বিক্রমের। বিক্রম কাত হয়ে পড়লেও, তার ভিতরে দিব্য রয়েছে রোভার প্রজ্ঞানও। কাজও করছে স্বাভাবিক ভাবে। অরবিটারের পাঠানো ছবি তা-ই বলছে। কিন্তু কোনও ভাবেই সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন করা যাচ্ছে না ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে।

অরবিটারের সঙ্গে যে ক্যামেরাটি পাঠানো হয়েছে, তাতে রয়েছে অত্যন্ত হাই রেজোলিউশনের লেন্স। ফলে তার পাঠানো ছবিগুলি সারা বিশ্বের বিজ্ঞান মহলের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, এ কথা আগেই জানিয়েছিল ইসরো। তাই তার পাঠানো ছবি এবং ডেটাইএখন বিস্তারিত ভাবে বিশ্লেষণ করা হচ্ছে।

শুক্রবার গভীর রাতে চাঁদের পিঠে নামার সময়ে যখন বিক্রমের সঙ্গে ইসরোর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়, তখন বিজ্ঞানীরা আদৌ নিশ্চিত ছিলেন না, ল্যান্ডার বিক্রম আস্ত আছে কি না। আশঙ্কা করা হয়েছিল, কক্ষপথ ছেড়ে ছিটকে বেরিয়েও যেতে পারে ল্যান্ডার। অনেকেই ভেঙে পড়েছিলেন, চন্দ্রযান ২ ব্যর্থ হয়েছে ভেবে। কিন্তু অরবিটার ছবি পাঠাতে থাকে।

রবিবার সকালে সেই অরবিটারের ছবিতে আচমকাই ধরা পড়ে বিক্রমের ছবি! দেখা যায় চাঁদে যেখানে নামার কথা ছিল বিক্রমের, সেখান থেকে ২.১ কিলোমিটার দূরে রয়েছে সে। তবে ঠিক কী অবস্থায় আছে, তা বোঝা যায়নি গত কাল। কিন্তু সোমবার বিজ্ঞানীরা দাবি করলেন, অরবিটারের পাঠানো আরও নানা রকম ছবি বিশ্লেষণ করে শেষমেশ জানা গিয়েছে, আস্ত আছে বিক্রম, ভেঙে যায়নি। এবং চাঁদের সঙ্গে তার দূরত্বও মাত্র হাফ কিলোমিটার।

এখন চেষ্টা একটাই, কী ভাবে বিক্রমের সঙ্গে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া যোগাযোগ ফের চালু করা যায়। সেটা সম্ভব হলেই অনেকটাই কেটে যাবে দুশ্চিন্তা, চন্দ্রযান পাঠানোর উদ্দেশ্য সফল হওয়ার সম্ভাবনা বাড়বে।

চন্দ্রযান ২-এর সঙ্গে জড়িত এক আধিকারিক বলেন, “যদি না ল্যান্ডার বিক্রমের সমস্তটা অক্ষত থাকে, তা হলে নতুন করে যোগাযোগ স্থাপন করা খুব কঠিন হবে। সুযোগ কমই আছে বলা যায়। সফ্ট ল্যান্ডিং ঠিকঠাক হলে বিক্রম অক্ষত থাকত। সেটা হয়নি বলেই দুশ্চিন্তা বেড়েছে। কিন্তু আজকের ছবি আবার অনেকটাই স্বস্তি দিয়েছে। বিক্রম গোটাই আছে, ভাঙেনি। এবার দেখা যাক, যোগাযোগ ফেরে কি না।”

আরও পড়ুন…

কেন যোগাযোগ হচ্ছে না বিক্রমের সঙ্গে? কী বললেন চন্দ্রযান ১-এর ডিরেক্টর

Comments are closed.