বুধবার, অক্টোবর ১৬

ভারতের সঙ্গে অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র চুক্তিতে আগ্রহী ট্রাম্প প্রশাসন, কিন্তু শর্ত একটাই!

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দূরপাল্লার এবং অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে ভারতের পাশে দাঁড়াতে চায় আমেরিকা। তবে শর্ত একটাই। রাশিয়ার সঙ্গে ক্ষেপণাস্ত্র চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে ভারতকে। গত বছরই রাশিয়ার কাছ থেকে সর্বাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরোধী ব্যবস্থা ‘এস-৪০০’ কেনার ব্যাপারে চুক্তিতে সই করেছে ভারত। রুশ অস্ত্রে ভরসা রাখার কারণেই গোসা আমেরিকার। এর আগে একমাত্র চিন, ২০১৪ সালে এই প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা পেয়েছে রাশিয়ার কাছ থেকে।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বৈঠকের সময় গত বছর ৫ অক্টোবর ৫০০ কোটি ডলার দিয়ে ওই প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনা নিয়ে চুক্তি হয় দু’দেশের মধ্যে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে বিবৃতি দিয়ে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক জানায়, এস-৪০০ হস্তান্তর শুরু হবে ২০২০-তে। ২০২৩ সালের মধ্যে তা শেষ হবে।

এর আগে ভারত ও আমেরিকার বিদেশ ও প্রতিরক্ষামন্ত্রীদের মধ্যে ‘টু প্লাস টু’ বৈঠকে স্বাক্ষরিত হয়েছিল ‘ক্যাটসা’। যে চুক্তির অন্যতম শর্তই ছিল, ওই চুক্তি স্বাক্ষরকারীরা রাশিয়ার কাছ থেকে ‘এস-৪০০’ কিনতে পারবে না। ‘ক্যাটসা’য় সই করার ফলে সর্বাধুনিক অস্ত্রশস্ত্র ও প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম পাওয়ার ক্ষেত্রে আমেরিকার কাছ থেকে সবচেয়ে বেশি সুবিধা পায় যে দেশগুলি, ভারত তাদের তালিকায় চলে আসে।  কূটনীতিকদের একটি অংশের মতে, ভারত যদি এস-৪০০ কেনা নিয়ে এগোয়, তবে ভারত-মার্কিন প্রতিরক্ষা সহযোগিতার ক্ষেত্রে তা গুরুতর প্রভাব ফেলবে।

রাশিয়ার সঙ্গে ৩২ বছরের পুরনো ক্ষেপণাস্ত্র চুক্তি থেকে বেরিয়ে এসেছে আমেরিকা। চুক্তির শর্ত ভঙ্গ করে একের পর এক পরমাণু অস্ত্রবাহী ক্ষেপণাস্ত্র বানাচ্ছে মস্কো, এই অভিযোগ তুলে চুক্তি ভঙ্গ করে আমেরিকা। আমেরিকা-রাশিয়া ঠাণ্ডা যুদ্ধের আশঙ্কাকে উসকে দিয়ে ভ্লাদিমির পুতিনও হুঁশিয়ারি দেন, শব্দের থেকে পাঁচ গুণ দ্রুতগামী হাইপারসনিক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র বানানোর কাজ শুরু হবে খুব শীঘ্রই।

ভারতের বিদেশ মন্ত্রক সূত্রে খবর, রাশিয়ার থেকে সামরিক সরঞ্জাম কেনার ব্যাপারে বরাবরই পথের কাঁটা আমেরিকা। চলতি বছরেই বিভিন্ন মঞ্চে ভারত-আমেরিকা যোগাযোগ হবে। সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে ভারত কখনওই তার অধিকার নিয়ে আপস করবে না।

Comments are closed.