সোমবার, এপ্রিল ২২

বছর পয়লায় পারদ ছোঁবে ৪০ ডিগ্রি! আশা নেই ছিঁটেফোঁটা বৃষ্টিরও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দোরগোড়ায় কড়া নাড়ছে পয়লা বৈশাখ। অপেক্ষার আর ২৪ ঘণ্টাও বাকি নেই। কিন্তু নতুন বছর আসার আগেই আশঙ্কার বার্তা দিল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। হাওয়া অফিস জানিয়েছে, আগামী তিনদিন দক্ষিণবঙ্গে কোনও ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। তাণ্ডব দেখাবে না কালবৈশাখীও। বরং দাপট বাড়বে দাবদাহের। চল্লিশের ঘরে পৌঁছবে পারদ।

এই মরশুমে চৈত্রের আগমনের সঙ্গেই দক্ষিণবঙ্গে আছড়ে পড়েছিল কালবৈশাখী। কোনওদিন জোড়া কালবৈশাখী, কোনওদিন বা হাওয়া গতিবেগ ছাড়িয়েছিল ঘণ্টায় ৮০ কিলোমিটার। ঝোড়ো হাওয়ার দাপটে তছনছ হয়ে গিয়েছিল কলকাতার একাংশ। প্রভাব পড়েছিল দক্ষিণবঙ্গের অন্যান্য জেলাতেও। এমনকী শিলাবৃষ্টিও দেখে নিয়েছেন শহরবাসী। তবে মার্চের শেষের দিক থেকেই বাড়তে শুরু করেছে গরম।

রাতের দিকে তাপমাত্রা খানিকটা কমলেও দিনের বেলায় অস্বস্তিতে হাঁসফাঁস করছেন দক্ষিণবঙ্গবাসী। রোদের তেজে টেকা দায়। পরিসংখ্যান বলছে গত কয়েকদিনে দিনের বেলায় ৩৩-৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা থাকলেও রাতের দিকে তাপমাত্রা কমে ২৫-২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস হয়ে যাওয়ায় কিছুটা স্বস্তি পাচ্ছিল মানুষ। তবে মাঝে আচমকাই একদিনে একলাফে তাপমাত্রা পৌঁছে গিয়েছে ৩৫-এর ঘরে। আরও বাড়বে বলেই পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দফতর। অনুমান, বছর পয়লাতেই তাপমাত্রা থাকবে সর্বোচ্চ ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

হাওয়া অফিসের অনুমান, বাস্তবে শরবাসীর অনুভূতি হবে ৪৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মতো। হাওয়া অফিসের তরফে আরও জানানো হয়েছে, তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি পেরিয়ে যাওয়া মানে দুপুরের দিকে কার্যত লু বইবে রাস্তাঘাটে। বাড়ি থেকে বেরনো কঠিন হয়ে উঠবে সাধারণ মানুষের।

নতুন বছর বঙ্গবাসী আর কী দেবে জানা নেই, তবে প্রচণ্ড গরম যে পড়বে তার আভাস দিয়েই দিয়েছে হাওয়া দফতর। তবে উত্তরবঙ্গে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছে আলিপুর।

Shares

Comments are closed.