বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৫

গায়ে শাসক দলের স্ট্যাম্প, মদ খেয়ে রাস্তায় লুটিয়ে পড়লেন হেড মাস্টার

মামিনুল ইসলাম

মাস্টারমশাই মাতাল! তাও আবার শুধু মাস্টার হলে কথা ছিল। এক্কেবারে হেড মাস্টারমশাই। শুধু হেড মাস্টারমশাই বললেও সত্যের অপলাপ হবে। তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সমিতির নির্বাচিত সদস্য। মা-মাটি-মানুষের দলে থাকা মাস্টারমশাইয়ের মাতলামো নিয়ে হইচই পরে গিয়েছে মুর্শিদাবাদ জেলার শিক্ষামহলে।

গুপিন মুর্মু। লালগোলা দুর্গাপুর-গনেশপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক। তাঁর সহকর্মীদের অভিযোগ, তিনি স্কুলে এলেই ঢাকা পরে যায় মিড ডে মিলের রান্নার গন্ধ। মদের গন্ধে ভুরভুর করে ক্লাস রুম। আতঙ্কে থাকেন শিক্ষিকারা। সেরকম আকণ্ঠ মদ্যপান করেই সোমবার স্কুলে গিয়েছিলেন হেড মাস্টার। সে দিন বোধহয় একটু বেশিই হয়ে গিয়েছিল। স্কুলে অসংলগ্ন আচরণ করায় অনিন্দিতা দাস নামের এক শিক্ষিকা খানিকটা ভয় পেয়েই আরএক শিক্ষিকা বিউটি খাতুনকে ডাকেন। চিৎকারও করেন স্কুলের ভিতর। হাওয়া গরম বুঝতে পেরেই স্কুল থেকে বেরিয়ে যান স্যার। কিন্তু সোমবার ব্যাপারটা চলে গিয়েছিল লিমিটের বাইরে । তাই আর কন্ট্রোলে ছিল না। স্টেশনে পৌঁছনোর আগেই, মাটিতে লুটিয়ে পড়েন গুপিনবাবু। অনেকেই ঠাট্টা করে বলছেন, এ যেন গুপিনবাবুর কারন সুধা।

স্থানীয়রাই তারপর মাতাল মাস্টারকে রাস্তা থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। ঘটনার পর কেটে গিয়েছে আটচল্লিশ ঘণ্টার বেশি সময়। এখন তিনি চাঙ্গা। কিন্তু সোমবারের ঘটনা নিয়ে অনুতাপের লেশ মাত্র নেই। বুধবার তিনি মেজাজের সঙ্গেই জানিয়ে দেন, “ওইরকম একটু হয়েই থাকে!”

গোটা ঘটনা নিয়ে স্কুলের বাকি শিক্ষক শিক্ষিকারা ক্ষুব্ধ। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের কর্তাদের কাছে অভিযোগও জানিয়েছেন তাঁরা। শিক্ষিকা অনিন্দিতা দাস জানিয়েছেন, “প্রায়ই তিনি এ ভাবে স্কুলে আসেন। বারণ করলেও শোনেন না।” তাঁর কথায়, গুপিন মাস্টার স্কুলে আসা মানেই আতঙ্ক।

অভিভাবকরা জানিয়েছেন মাসের অর্ধেক দিন স্কুলেই আসেন না তিনি। একদিন এসে এক সপ্তাহের সই করে চলে যান। কেউ কিছু বললেই, ‘আমি তৃণমূল’ বলে ধমকে দেন। গত পঞ্চায়েত নির্বাচনেই নবগ্রাম পঞ্চায়েত সমিতিতে ঘাসের উপর জোড়াফুল প্রতীকে জিতেছেন তিনি। প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের আধিকারিক দীপঙ্কর জানিয়েছেন, “গোটা ঘটনার তদন্ত চলছে। প্রমাণিত হলে শাস্তি হবে।”জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব জানিয়েছেন, “অপরাধ করলে কেউ ছাড় পাবে না। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তদন্ত করছে।”

আরও পড়ুন 

এ যেন হেরাফেরি! ‘মোদী’-কে ‘দিদি’ দিয়ে ভাগ করে দিলেন পরেশ রাওয়াল

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Comments are closed.