সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৩

কীর্তনের আসরে ঢুকে বিজেপি কর্মীকে গুলি, কাঠগড়ায় তৃণমূল

দ্য ওয়াল ব্যুরো, ঝাড়গ্রাম: হরিনাম সংকীর্তনের আসরে ঢুকে বিজেপি কর্মীকে গুলি করার ঘটনায় কাঠগড়ায় তৃণমূল। শনিবার বেশি রাতে ঝাড়গ্রাম জেলার জামবনি ব্লকের বাঘুয়া গ্রামে হরিনাম সংকীর্তন শুনতে গিয়েছিলেন ওই গ্রামের যুবক তথা সক্রিয় বিজেপি কর্মী খণপতি মাহাতো (২০) ও তাঁর বন্ধুরা । অভিযোগ,  তিনজন যুবক খনপতিকে  কীর্তনের আসর থেকে ডেকে নিয়ে যায় নিকটবর্তী একটি মাঠে । তারপর সেখানেই তাকে সামনে থেকে তার বুকের ডান দিকে গুলি করে ওই তিন দুষ্কৃতী ।

গুলির আওয়াজ শুনে নাম সংকীর্তন দেখতে আসা লোকজন ছুটে যান মাঠে । চম্পট দেয় দুষ্কৃতীরা । ঘটনাস্থল থেকে খনপতি কে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয় ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে । শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় রাতেই তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। সেখান থেকে কলকাতায় আনা হয়েছে গুলিবিদ্ধ বিজেপি কর্মীকে। তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে। যদিও এই ঘটনায় রবিবার বিকেল পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ ।

ঝাড়গ্রাম হাসপাতালে যখন গুলিবিদ্ধ বিজেপি কর্মীকে নিয়েব যাওয়া হয়, তখন তাঁর জ্ঞান ছিল বলে জানা গিয়েছে। জবানবন্দিতে খণপতি পুলিশকে জানিয়েছেন দু’জনকে তিনি চিনতে পেরেছেন। একজনের নাম শান্তনু মাহাতো ও অন্য জন কবি মাহাতো । স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, শান্তনু ও কবি দু’জনেই তৃণমূলকর্মী। এলাকায় গুলি চালানোর ঘটনায় উত্তেজনা থাকায় মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ।

অভিযুক্ত শান্তনু মাহাতোর বিরুদ্ধে পুলিশের খাতায় একাধিক অভিযোগ রয়েছে। জঙ্গলমহলে মাওবাদী কার্যকলাপের সময়ে, তাদের সাহায্য করত বলে এর আগেও গ্রেফতার করা হয়েছিল শান্তনুকে। বিজেপি-র অভিযোগ, এই গোটাটাই তৃণমূল করিয়েছে। যদিও তৃণমূলের অভিযোগ, ব্যক্তিগত বিবাদকে রাজনৈতিক রঙ দিতে চাইছে বিজেপি।

কী কারণে খনপতি কে গুলি করা হয়েছে তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে  পুলিশের অনুমান এই ঘটনার পেছনে রাজনৈতিক কারণ থাকলেও থাকতে পারে ।  ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ ।

Comments are closed.