মঙ্গলবার, জুন ২৫

#Breaking: বাঁকুড়ায় ঢুকতে পারবেন সৌমিত্র খান, তবে ১দিনের জন্য, নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কলকাতা হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল, ছ’সপ্তাহ বাঁকুড়ায় ঢুকতে পারবেন না বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খান। এই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিলেন সৌমিত্র। শুক্রবার দেশের শীর্ষ আদালত নির্দেশ দিল, বাঁকুড়ায় ঢুকতে পারবেন সৌমিত্র খান। তবে সেটা শুধুমাত্র একদিনের জন্য। মনোনয়ন জমা দেওয়ার জন্যই একদিন তাঁকে বাঁকুড়ায় ঢোকার অনুমতি দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টে সৌমিত্রর আইনজীবী সন্দীপন গঙ্গোপাধ্যায় জানান, যদি ছ’সপ্তাহ অর্থাৎ দেড়মাস তিনি বাঁকুড়ায় ঢুকতেই না পারেন, তাহলে মনোনয়ন কীভাবে জমা দেবেন। এ কথা শুনে বিচারপতি জিজ্ঞাসা করেন, সৌমিত্র খানের মনোনয়ন জমা দেওয়ার তারিখ কত? তখন আইনজীবী বলেন, বাঁকুড়ায় মনোনয়ন জমা দেওয়ার তারিখ ১৬ এপ্রিল থেকে ২৪ এপ্রিলের মধ্যে। এ কথা শোনার পর দেশের শীর্ষ আদালতের তরফে নির্দেশ দেওয়া হয়, ১৬ থেকে ২৪ এপ্রিলের মধ্যে মনোনয়ন জমা দেওয়ার জন্য একদিন বাঁকুড়ায় ঢুকতে পারবেন সৌমিত্র। তবে সেইসঙ্গে এও নির্দেশ দেওয়া হয়, বিজেপি প্রার্থীর উপরে আর যে সব শর্ত আরোপ করেছে হাইকোর্ট, সেইসব শর্ত শিথিল করার জন্য হাইকোর্টেরই দ্বারস্থ হতে হবে তাঁকে।

তৃণমূল সাংসদ থেকে বিজেপি-তে যাওয়ার পরপরই সৌমিত্র খানের বিরুদ্ধে রুজু হয় চার চারটি মামলা। ২৭ মার্চ সেই সব মামলা একসঙ্গে ওঠে কলকাতা হাইকোর্টে। শুনানির শেষে বিচারপতি জয়মাল্য বাগচী ও বিচারপতি মনজিৎ মণ্ডলের ডিভিশন বেঞ্চ নির্দেশ দেন, ছ’সপ্তাহ বাঁকুড়া জেলায় ঢুকতে পারবেন গতবারের বিষ্ণুপুরের তৃণমূল সাংসদ তথা এ বারের বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র। এই নির্দেশের পর তাঁর আইনজীবী প্রার্থীর মনোনয়নের প্রসঙ্গ তুললে বিচারপতি মন্তব্য করেন, “অভিযুক্তের ভোটে না দাঁড়ানোই উচিত। তবে এটা অবশ্য তাঁর নিজের বোধবুদ্ধির ব্যাপার।” এমনকী আদালত পুলিশকে নির্দেশ দেয়, এই সময়ের মধ্যে সৌমিত্রকে বাঁকুড়া পুলিশ ডেকে জেরা করতেই পারে, তবে কোনওভাবেই গ্রেফতার করা যাবে না।

হাইকোর্টের এই নির্দেশের পরেই ২৯ মার্চ সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন চোদ্দর ভোটে তৃণমূলের টিকিটে সাংসদ হওয়া সৌমিত্র। সেই মামলার শুনানি ছিল এ দিন। তবে এই নির্দেশের পরেও পুরোপুরি চিন্তামুক্ত হতে পারছেন না রাজ্য বিজেপির নেতারা। কারণ, সুপ্রিম কোর্ট বাকি সব অনুমতির জন্য ফের হাইকোর্টের দ্বারস্থ হওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু সেখানে অনুমতি মিলবে কিনা, সে ব্যাপারে খুব একটা ইতিবাচক নন তাঁরা। দেড় মাস যদি বাঁকুড়া জেলায় সৌমিত্র ঢুকতেই না পারেন, তাহলে প্রচার হবে কী করে?

বুধবার থেকে ছ’সপ্তাহ ধরলে পেরিয়ে যাবে পঞ্চম দফার ভোট। সৌমিত্রর কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হবে ষষ্ঠ দফায় অর্থাৎ ১২ মে। তাই মাত্র হাতে গুনে তিন-চারদিন এলাকায় প্রচারের সুযোগ পাবেন তিনি। বিজেপি নেতারা ভাল মতই জানেন, প্রার্থী যদি এলাকায় ঢুকতে না পারেন, তাহলে যতই কর্মীরা প্রচার করুক, আসলে ফাঁকা মাঠ পেয়ে যাবে তৃণমূলই। সেটা হতে দিতে চান না তাঁরা। তাই হয়তো ফের হাইকোর্টে আবেদন করবেন সৌমিত্র।

ফেব্রুয়ারি মাসেই তৃণমূল থেকে বিজেপি-তে যোগ দিয়েছেন সৌমিত্র খান। তার পরই তাঁর নামে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, বেআইনি অস্ত্র রাখা, বালি পাচারের মতো একাধিক মামলা হয় বাঁকুড়ার বিভিন্ন থানায়। সেইসব মামলারই শুনানি হওয়ার কথা হাইকোর্টে।

আরও পড়ুন

জুতো খুলিয়ে পা ধুইয়ে দেওয়া হচ্ছে মৌসমের, ছবি প্রকাশ্যে আসতেই বিতর্ক

Comments are closed.