দিলীপের খড়্গপুরে রাবণ দহন করলেন শুভেন্দু

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গত বছর রাবণ দহনের তির-ধনুক ছিল দিলীপ ঘোষের হাতে। এক বছর পরেই পালটে গেল ছবিটা। পশ্চিম মেদিনীপুরের খড়্গপুরে রাবণ ময়দানে রাবণ দহনের তির-ধনুক ছিনিয়ে নিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের অবিসংবাদী নেতা শুভেন্দু অধিকারী। শুক্রবার দশহরার অনুষ্ঠানে মঞ্চ থেকে সবাইকে বিজয়া দশমীর শুভেচ্ছা জানালেন মেদিনীপুরের ভূমিপুত্র শুভেন্দু।

রেলশহর খড়্গপুরে অবাঙালি জনসংখ্যার আধিক্য বেশি। ৮০ বছর ধরে এখানকার রেলের সেটেলমেন্ট গ্রাউন্ড ( রাবণ ময়দান )-এ দশমীর দিন রাবণ দহন অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। হিন্দি ভাষাভাষি এলাকার মতই খড়্গপুরে দশহরার দিন রাবণ দহন একটা বড় আকর্ষণ। ওই দিন এই ময়দানে লক্ষাধিক মানুষের সমাগম হয়। সেই উৎসবে সামিল হন স্থানীয় বাঙালিরাও।

এ বছর খড়্গপুরের দশেরা উৎসব কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত শুক্রবারের অনুষ্ঠানে উদ্বোধন করার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয় পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীকে। এছাড়াও আমন্ত্রণ জানানো হয় পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলাশাসক পি মোহন গান্ধী, পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া, রেলের ডিভিশনাল ম্যানেজার কেআরকে রেড্ডি এবং জেলা পরিষদের সভাপতি অজিতকুমার মাইতিকে।

 

উদ্যোক্তাদের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে শুক্রবার সেখানে যান শুভেন্দু। অনুষ্ঠানে উপস্থিত লক্ষ লক্ষ মানুষকে বিজয়ার শুভেচ্ছা জানান শুভেন্দু। প্রত্যেককে উৎসবের আনন্দ উপভোগ করতে বলেন। পরিবহনমন্ত্রী আসায় এ দিন সুরক্ষা ব্যবস্থা ছিল খুব কড়া। তারপর তির হাতে রাবণ দহন করেন শুভেন্দু অধিকারী।

কিন্তু বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের শুভেন্দু আধিকারীর এই প্রভাবে প্রমাদ গুনছে বিজেপি। কারণ সংগঠক হিসেবে যথেষ্ট সুনাম রয়েছে শুভেন্দুর। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অনেক ক্ষেত্রেই শুভেন্দু’র উপর নির্ভর করে থাকেন। পশ্চিম মেদিনীপুরের দায়িত্ব নেওয়ার পর ইতিমধ্যেই যে ফেরবদল জেলার রাজনীতিতে হয়েছে, তারই প্রমাণ এ দিনের রাবণ ময়দানে দেখা গেল বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More