বুধবার, জানুয়ারি ২২
TheWall
TheWall

ধেয়ে আসছে ফণী, পর্যটকদের নিরাপদে ফেরাতে দিঘা থেকে ৫০টি বাস চালাবে এসবিএসটিসি

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ধেয়ে আসছে ফণী। শুক্রবার মধ্যরাতেই দক্ষিণবঙ্গে প্রবেশ করতে পারে এই এক্সট্রিমলি সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম। সে সময় ঝড়ের গতি কিছুটা কমলেও ঘণ্টায় গতিবেগ থাকবে ৯০ থেকে ১০০ কিলোমিটার। যা কোনও কোনও সময়ে ১১৫ কিমি পর্যন্ত হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর।

ইতিমধ্যেই উপকূলের জেলাগুলিতে জারি হয়েছে চরম সতর্কতা। উইকেন্ডে বাঙালির পছন্দের ডেস্টিনেশন দিঘা, শঙ্করপুর, মন্দারমনি, তাজপুরে পর্যটকদের সমুদ্রে নামার ক্ষেত্রে জারি হয়েছে কড়া নিষেধাজ্ঞা। হোটেল মালিকরা জানাচ্ছেন, বাতিল হয়ে গিয়েছে একাধিক বুকিং। পর্যটকদের অনেকেই তিন চার দিনের বুকিং নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু অনেকেই তা বাতিল করে ফিরে গিয়েছেন বলে জানিয়েছেন বিভিন্ন হোটেল মালিকরা।

তবে এখনও বেশ কিছু পর্যটক রয়ে গিয়েছেন এইসব এলাকায়। এ দিকে বাতিল হয়েছে অসংখ্য ট্রেনও। তাই পর্যটকদের সুবিধার কথা মাথায় রেখে তাঁদের নিরাপদে ফিরিয়ে আনতে ৩ মে দিঘা থেকে ৫০টি বাস চালানো হবে বলে জানিয়েছে দক্ষিণবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থা (SBSTC)। শুক্রবার ভোর ৫টা থেকেই চালু হবে পরিষেবা। প্রতি আধঘণ্টা অন্তর (৩০ মিনিট) বাস পাবেন যাত্রীরা। এ ছাড়াও SBSTC-র তরফে জানানো হয়েছে আরও ১৫টি বাস মজুত রয়েছে। প্রয়োজনে সেই বাসগুলিও চালানো হবে।

আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস উপকূলবর্তী নয় এমন জেলাগুলিতেও ঝড়ের গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৭০ কিমি। একইসঙ্গে মাঝে মধ্যে ঘণ্টায় ৮০ কিমি বেগের ঝাপটাও থাকবে। বিপর্যয় মোকাবিলা করার জন্য ইতিমধ্যে NDRF-er ৬টি দল এসে পৌঁছছে দক্ষিণবঙ্গে। হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস বৃহস্পতিবার সন্ধে থেকেই রাজ্যের উপকূলবর্তী অঞ্চলে ঝোড়ো হাওয়া বইতে শুরু করবে। যার গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ৪০ থেকে ৫০ কিমি। কখনও তা বেড়ে গিয়ে ঘণ্টায় ৬০ কিমি পর্যন্ত পৌঁছবে। এই গতিবেগই ক্রমান্বয়ে বাড়তে বাড়তে শুক্রবার গভীর রাতের দিকে তীব্র ঘূর্ণি ঝড়ের আকার নেবে। ঝোড়ো হাওয়ার দাপটের সঙ্গে ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাসও দিয়েছে আবহাওয়া দফতর।

আরও পড়ুন-

মাত্র ২৭৫ কিলোমিটার দূরে রয়েছে ফণী, শুক্রবার ভোরেই আছড়ে পড়বে ওড়িশায়

Share.

Comments are closed.