বুধবার, অক্টোবর ১৬

তীব্র গরমের পর অবশেষে স্বস্তির বৃষ্টি বঙ্গে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বুধবার রাত বাড়লেই বঙ্গে নামতে পারে স্বস্তির বৃষ্টি। সঙ্গে চলবে ঝোড়ো হাওয়াও। এমন পূর্বাভাস আগেই দিয়েছিল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। সেই মতোই অবশেষে তীব্র দাবদাহের পর নামল বৃষ্টি। বেশ কিছু জায়গায় ঝড় হয়েছে বলেও খবর।

পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, দুই বর্ধমান, নদিয়া, হুগলি, হাওড়াতে নেমেছে বৃষ্টি।জানা গিয়েছে উত্তর এবং দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার বেশ কিছু জায়গাতেও বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি হচ্ছে। বজ্রবিদুৎ সহ হাল্কা থেকে মাঝারি বৃষ্টির সঙ্গে বইছে ঝোড়ো হাওয়াও। কলকাতাতেও বেশ কিছু জায়গায় বিশেষ করে দক্ষিণ কলকাতা এবং সল্টলেক চত্বরে হাল্কা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হচ্ছে। বইছে ঝোড় হাওয়াও।

গত কয়েকদিন তীব্র গরমে পুড়েছে শহর এবং শহরতলি। চড়া রোদের সঙ্গে বাতাসে হাজির ছিল অতিরিক্ত আর্দ্রতা। স্বাভাবিকের তুলনায় বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি থাকায় ভ্যাপসা গরমে হাঁসফাঁস করেছেন শহরবাসী। তাপমাত্রা ছিল ৩৫ থেকে ৩৭ ডিগ্রির আশেপাশে। পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোয় অবস্থা ছিল আরও সঙ্গিন। কিছু জায়গায় পারদ ছুঁয়েছিল ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে আপাতত এই ঝড়বৃষ্টির প্রভাবে সাময়িক স্বস্তি পাবেন বঙ্গবাসী।

চলতি বছর নির্ধারিত সময়ের তুলনায় দেরিতে কেরলে ঢুকেছে বর্ষা। প্রায় দু’ সপ্তাহ দেরিতে কেরল উপকূলে বর্ষা আসার ফলে বঙ্গেও যে বর্ষা আসতে দেরি হবে সে কথা আগেই জানিয়েছিল হাওয়া অফিস। পাশাপাশি আরবসাগরে সৃষ্ট সাইক্লোন ‘ভায়ু’-র কোনও প্রভাব বাংলায় পড়বে কি না সে ব্যাপারেও নিশ্চিত করে কিছুই জানাননি আবহাওয়াবিদরা।

তবে বুধবারের আচমকা ঝড়বৃষ্টিতে সাময়িক হলেও পারদ কিছুটা কম হবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। রাত বারোটার পর কিছু জেলায় ঝড়বৃষ্টির পরিমাণ বাড়তে পারে বলেও জানিয়েছে হাওয়া অফিস।

Comments are closed.