বুধবার, নভেম্বর ১৩

বৃষ্টি যেন ‘চলছে চলবে’, বর্ষা বিদায় নিলেও ভিজবে কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গ

  • 54
  •  
  •  
    54
    Shares

দ্য ওয়াল ব্যুরো: খাতায় কলমে বিদায় নিয়েছে বর্ষা। কিন্তু তারপরেও বৃষ্টি বিদায় নিচ্ছে না রাজ্য থেকে। বুধবার দুপুরে কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায় বৃষ্টি হয়েছে। বৃহস্পতিবারও শহরের আকাশ মেঘলা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টি হয়েছে দক্ষিণবঙ্গের কয়েকটি জেলাতেও।

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী ৪৮ ঘণ্টায় বাংলায় উপকূলবর্তী জেলাসহ রাজ্যের বেশ কয়েকটি জায়গায় বিক্ষিপ্তভাবে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। কলকাতা ছাড়াও দুই মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে। তবে আবহাওয়া দফতরের রিপোর্ট অনুযায়ী এই মুহূর্তে রাজ্যের এই জেলাগুলিতে ভারি বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। বেশিরভাগ স্থানেই বিক্ষিপ্তভাবে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হবে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।

আবহাওয়া দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবার সকালে শহরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৫.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের থেকে যা প্রায় ১ ডিগ্রি বেশি। বাতাসে আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি বজায় থাকছে। আলিপুর জানিয়েছে এই বৃষ্টির অন্যতম কারণ উত্তর-পূর্ব মৌসুমী বায়ু ছাড়াও দক্ষিণ কর্ণাটকের উপর তৈরি হওয়া একটি ঘূর্ণাবর্ত। দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর তামিলনাড়ু উপকূল থেকে পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত আরও একটি অক্ষরেখা রয়েছে। তবে, পশ্চিমবঙ্গের উপকূলীয় অঞ্চলে এই মুহূর্তে কোনও ঘুর্ণাবর্ত নেই।

এ বছর নির্ধারিত সময়ের তুলনায় বেশ অনেকটাই দেরিতে বঙ্গে এসেছিল বর্ষা। তাই প্রথম দিকে ঘাটতি ছিলই। তবে পরে সক্রিয় হয় মৌসুমী বায়ু। সঙ্গে দোসর নিম্নচাপ এবং ঘূর্ণাবর্ত। আবহবিদদের আশঙ্কা ছিল যে সময় বর্ষা বিদায় নেওয়ার কথা সেই সময়েই ঘাটতি পূরণ করবে মৌসুমী বায়ু। হয়েছেও ঠিক তাই। সাধারণত সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় ভাগ থেকেই দুর্বল হতে শুরু করে মৌসুমী অক্ষরেখা। তবে এ বছর সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় ভাগ থেকেই সক্রিয় হয়েছে মৌসুমী অক্ষরেখা। বেড়েছে বৃষ্টির পরিমাণ। এমনকি অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে দুর্গা পুজোর সময়েও বৃষ্টির দাপটে ভেসেছে শহর।

মৌসম ভবনের রিপোর্ট বলছে গত ২৫ বছরে এত বৃষ্টি দেয়নি কোনও বর্ষা। ১৯৯৪ সালের পরে এতটা বর্ষার বৃষ্টি পায়নি দেশ। সাধারণত জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত স্থায়িত্ব থাকে বর্ষাকালের। তবে এ বছর বৃষ্টি হয়েছে জুন থেকে অক্টোবর মাসের প্রথমার্ধ পর্যন্ত।

পড়ুন দ্য ওয়াল-এর পুজোসংখ্যার বিশেষ লেখা…

Comments are closed.