রবিবার, জানুয়ারি ১৯
TheWall
TheWall

ভোটপর্বে নজরবন্দি রাখুন অনুব্রতকে, কমিশনে আবেদন ভোটকর্মীদের

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভোট ঘোষণার পর থেকেই নিরাপত্তার দাবি নিয়ে সরব হয়েছেন ভোটকর্মীরা। গড়ে তুলেছেন ভোটকর্মী ঐক্য মঞ্চ। প্রথম দফা থেকেই সব বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাবিতে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় বিক্ষোভ দেখিয়েছেন তাঁরা। চতুর্থ দফার ভোটের আগে এ বার ফের নিরাপত্তা ও সন্ত্রাসমুক্ত নির্বাচনের দাবি জানিয়ে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হলেন ভোটকর্মীরা। তাঁদের অভিযোগের কেন্দ্রে বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল।

শনিবার লিখিত আবেদন নিয়ে নির্বাচন কমিশন দফতরে যান ভোটকর্মী ঐক্য মঞ্চের যুগ্ম আহ্বায়ক স্বপন মণ্ডল। মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের কাছে ওই অভিযোগ জমা দেন তিনি। ভোটকর্মীদের অভিযোগ, বিভিন্ন সূত্র থেকে তাঁরা খবর পেয়েছেন, বীরভূম জেলায় ভোট অবাধ ও শান্তিপূর্ণ হবে কিনা, তা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল শাসকদলের হয়ে ভোট করানোর জন্য ভোটকর্মীদের হুমকি দিচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেছেন ভোটকর্মীরা।

ভোটকর্মী ঐক্য মঞ্চের তরফে নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে, ভোটপর্ব মিটে যাওয়া পর্যন্ত যেন নির্বাচন কমিশন নজরবন্দি করে রাখেন বীরভূমের এই দোর্দণ্ডপ্রতাপ নেতাকে। এ ছাড়াও ভোট মেটা পর্যন্ত যেন অনুব্রত কারও সঙ্গে যোগাযোগ না করতে পারেন, সে দিকেও লক্ষ্য রাখার আবেদন করেছেন ভোটকর্মীরা। এ ছাড়াও তাঁদের আবেদনপত্রে শনিবার সকালে ডায়মন্ড হারবারের বাম প্রার্থী ফুয়াদ হালিমের উপর হামলার প্রসঙ্গও এসেছে। তাঁরা জানিয়েছেন, বাম প্রার্থীর উপর যখন হামলা হলো, তখন কেন্দ্রীয় বাহিনী কোথায় ছিল। তাঁদের প্রশ্ন, প্রার্থীই যদি সুরক্ষিত না হন, তাহলে ভোটকর্মীরা কীভাবে নিজেদের সুরক্ষিত মনে করবেন।

বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের মতো বর্ণময় চরিত্র রাজনীতির ময়দানে খুব কম রয়েছেন। পঞ্চায়েত নির্বাচনের সময় তিনি বলেছিলেন পুলিশের উপর বোম মারতে। কখনও ভোট করাতে পাঁচনের নিদান, তো কখনও চড়াম চড়াম করে ঢাক, সবই তাঁর মুখ থেকেই বেরিয়েছে। উনিশের লোকসভার আগে অবশ্য এই নেতা তুলে এনেছেন গুড়-বাতাসা ও নকুলদানা তত্ত্ব। বিরোধীরা যতই তাঁর বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছে, তিনি তাঁর নিজের কায়দায় তার মোকাবিলা করেছেন। এর মাঝেই অবশ্য উস্কানিমূলক কথা বলার জন্য তাঁক শো-কজ করে কমিশন। তাতে তিনি জবাব দিয়েছিলেন, ‘কমিশনও নকুলদানা খেতে ভালোবাসে।’

পর্যবেক্ষকদের মতে, ক্ষমতায় আসার পর অনুব্রতর দাপটে বীরভূম বরাবরই তৃণমূলের শক্ত ঘাঁটি। এ দিকে বীরভূমে বেশ কিছুদিন ধরেই শক্তি বাড়াচ্ছে বিজেপি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এসেও এই জেলায় সভা করে যাচ্ছেন। বিজেপির সভায় মানুষের উপস্থিতিও চোখে পড়ছে। এই পরিস্থিতিতে নিজেদের দুর্গ দখলে মরিয়া শাসক দল। বীরভূমে লড়াই দেওয়ার জন্য প্রস্তুত গেরুয়া শিবিরও। এই পরিস্থিতিতে বীরভূম ক্রমেই উত্তপ্ত হচ্ছে। আর তাই নিজেদের সুরক্ষার দাবিতে কমিশনের দ্বারস্থ হলেন ভোটকর্মীরা। এখন দেখার এই ব্যাপারে কমিশন কোনও সিদ্ধান্ত নেয় কিনা।

আরও পড়ুন

বাড়িতে মন টিকল না, ওয়াকার হাতেই প্রচারে গৌতম দেব

Share.

Comments are closed.