শনিবার, অক্টোবর ২০

পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনের বিজ্ঞপ্তি জারি, ১৬ থেকে শুরু

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সিদ্ধান্ত হয়ে গিয়েছিল বৃহস্পতিবারই। শুক্রবার পঞ্চায়েত দফতর থেকে জারি হয়ে গেল নির্দেশিকা। পঞ্চায়েতে মামলা ঝুলে থাকলেও আইনি জটিলতা নেই এমন পঞ্চায়েতগুলির প্রথম সভা করার তারিখ ঘোষণা করেদিল এ দিন।

এ দিনের বিজ্ঞপ্তিতে রাজ্য সরকারের বিশেষ সচিব জানিয়েছেন, গ্রাম পঞ্চায়েতগুলি গঠনের কাজ শেষ করতে হবে ১৬ অগস্ট থেকে ২৯ অগস্টের মধ্যে। পঞ্চায়েত সমিতি গঠনের ডেট লাইন ৩১ অগস্ট থেকে ৯ সেপ্টেম্বর। এবং জেলা পরিষদগুলি গঠনের কাজ হবে ১০ সেপ্টেম্বর থেকে ১৩ সেপ্টেম্বরের মধ্যে।

প্রসঙ্গত, দেশের শীর্ষ আদালতে এখনও ঝুলে রয়েছে পঞ্চায়েত মামলা, বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জেতা ৩৪ শতাংশ আসনের কী হবে তা জানা যাবে সামনের সোমবার। আর তার আগেই এই বিজ্ঞপ্তি ঘোষণা করে দিল সরকার। যদিও সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, যে পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি, এবং জেলা পরিষদের ক্ষেত্রে আইনি জটিলতা নেই তাদের ক্ষেত্রেই এই বিজ্ঞপ্তি প্রযোজ্য। এর মধ্যে রয়েছে ১৬৩৮ টি গ্রাম পঞ্চায়েতে, ১২৩ টি পঞ্চায়েত সমিতি এবং ৮ টি জেলা পরিষদ।

গত ৬ অগস্টই নিষ্পত্তি হয়ে যাওয়ার কথা ছিল এই মামলার। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চের অন্যতম সদস্য বিচারপতি চন্দ্রচূড় না আসায় ওইদিন মামলা ওঠেনি। সেদিনই পঞ্চায়েতমন্ত্রী জানিয়েছিলেন এ মাসের মধ্যে রায় হলে ভাল না হলে সমস্যা হবে। গত মাসে যখন এই মামলা উঠেছিল শীর্ষ আদালতে তখন রাজ্য নির্বাচন কমিশনের সচিব এবং আইনজীবীকে নাস্তানাবুদ হতে হয়েছিল আদালতে। তখনই ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়েছিল ১৭ অগস্ট রায় দেওয়া হবে। রাজ্যের তরফে আবেদন জানানো হয়, ৭ অগস্টের মধ্যে অনেক পঞ্চায়েতের মেয়াদ ফুরিয়ে যাবে। তাই তার আগে তারিখ দেওয়া হোক। সেই আবেদনের ভিত্তিতেই ৬ অগস্ট তারিখ ঘোষণা করেছিল ডিভিশন বেঞ্চ। পিছিয়ে যাওয়ার ফলে প্রশ্ন ওঠে তাহলে কি পঞ্চায়েতগুলিতে প্রশাসক বসানো হবে? কিন্তু পঞ্চায়েতমন্ত্রী অগস্টমাস অবধি সময় আছে বলে জানিয়েছিলেন। সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে সামনের সোমবার রায় দেবে। তার আগেই তড়িঘড়ি বিজ্ঞপ্তি জারি কি পরোক্ষে আদালতের উপর চাপ তৈরি? প্রশ্ন তুলছেন অনেকে।

 

 

Shares

Leave A Reply