উত্তরবঙ্গ উৎসব: একসঙ্গে আট জেলায় উদ্বোধন, শিলিগুড়িতে সূচনা করবেন মমতা

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শিলিগুড়িতে উত্তরবঙ্গ উৎসবের উদ্বোধনের জায়গা বদল হল। আগে হওয়ার কথা ছিল মাল্লাগুড়ির পুলিশ কমিশনারেট মাঠে। তার পরিবর্তে উৎসব হবে শিবমন্দিরের আঠারোখাই খেলার মাঠে। এখান থেকেই ২০ জানুয়ারি দুপুরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে উৎসবের সূচনা হওয়ার কথা। তবে সেদিন একই সঙ্গে উত্তরবঙ্গের ৮ জেলাতেই উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে।

জানা গিয়েছে, এই উৎসবের উদ্বোধন উপলক্ষ্যে প্রতিটি জেলায় করা হবে উৎসব মঞ্চ। দার্জিলিং থেকে কালিম্পং, কোচবিহার থেকে মালদায় একটি থেকে দুটি জায়গায় উৎসব মঞ্চ করা হবে। এবারের নবম উত্তরবঙ্গ উৎসব নিয়ে শনিবার শিলিগুড়ির মৈনাকে প্রস্তুতি বৈঠক করেন পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব। ওই বৈঠকে শিলিগুড়ির বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল এবং প্রশাসনের কর্তারা ছিলেন। ডাকা হয়েছিল বিভিন্ন সরকারি দফতরের আধিকারিক ও উত্তরবঙ্গ উৎসব কমিটির সদস্যদের।

সূত্রের খবর, এই বৈঠকে বসে আঁকো প্রতিযোগিতাকে সফল করার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। গত বছর এক সঙ্গে প্রায় ১৭ হাজার প্রতিযোগী অংশ নিয়েছিল এই প্রতিযোগিতায়। এবার অংশগ্রহণ বাড়াতে নেওয়া হচ্ছে প্রস্তুতি। উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরের উদ্যোগে মুখ্যমন্ত্রীর তত্ত্বাবধানেই এই উৎসব হয়। গত ৩ জানুয়ারি মুখ্যমন্ত্রী শিলিগুড়িতে এসে উৎসবের প্রস্তুতি সেরে নিতে বলে গিয়েছিলেন। তারই পরিপেক্ষিতে আগেই প্রশাসনিক বৈঠক করা হয়েছিল। এদিন বাকি প্রস্তুতি নেওয়া হয়।

বৈঠকের পরে পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী ২০ জানুয়ারি দুপুরে উৎসবের উদ্বোধন করে সেদিনই পাহাড়ে চলে যেতে পারেন। তিনিই বলেছেন, এই উৎসব একদিনেই সমস্ত জায়গা থেকেই উদ্বোধন করার বিষয়ে। উৎসবের প্রধান আকর্ষণ বসে আঁকো প্রতিযোগিতা। ২৩ জানুয়ারি কাঞ্চনজঙ্ঘা স্টেডিয়ামের মাঠে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিযোগিতায় ৪টি বিভাগে ২০০ জনকে পুরস্কৃত করা হবে।”

উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, ২৬ জানুয়ারি রয়েছে ম্যারাথান ও সৌভ্রাতৃত্বমূলক দৌড়। এই দুটি প্রতিযোগিতা শুরু হবে শিলিগুড়ির অগ্রণী সঙ্ঘ থেকে। বিভিন্ন পথ ঘুরে দার্জিলিং মোড়ে গিয়ে শেষ হবে এই দৌড়। উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন শহরের পাশাপাশি এবছর মিরিকে প্রথমবার অনুষ্ঠিত হতে চলেছে উত্তরবঙ্গ উৎসব। এই উৎসবে উত্তরবঙ্গের ৮ জেলা থেকে ৯ জনকে বঙ্গরত্ন দেওয়া হবে। শিলিগুড়িতে নতুন কিছু জায়গায় এবার উৎসব চলবে। উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের রবীন্দ্রভানু মঞ্চেও দু’‌দিনের অনুষ্ঠান হবে। কাওয়াখালির বিশ্ববাংলা শিল্পী হাটেও অনুষ্ঠান রয়েছে। উৎসব শেষ ২৯ জানুয়ারি।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More