রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৫

#Breaking: ছত্রধর মাহাতো-র যাবজ্জীবন কারাদণ্ড খারিজ, রায় কলকাতা হাই কোর্টের

  • 749
  •  
  •  
    749
    Shares

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ছত্রধর মাহাতো সহ চার জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড খারিজ করল কলকাতা হাই কোর্ট। ২০০৯ সালে কাঁটাপাহাড়ি বিস্ফোরণ মামলায় গ্রেফতার হয়েছিলেন ছত্রধর মাহাতো ও আরও ৫ জন। তাঁরা হলেন সাগুন মুর্মু, শম্ভু সরেন, সুখশান্তি বাস্কে, প্রসূন চট্টোপাধ্যায় এবং রাজা সরখেল।

এর মধ্যে প্রথম চারজনের বিরুদ্ধে ইউএপিএ ধারায় মামলা রুজু হয়েছিল। এঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল ষড়যন্ত্র, বেআইনি অস্ত্র রাখা এবং দেশদ্রোহিতার। সেই অভিযোগে এঁরা যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত ছিলেন। বুধবার, কলকাতা হাই কোর্টে বিচারপতি মুমতাজ খান ও জয় সেনগুপ্তর ডিভিশন বেঞ্চ এঁদের শাস্তির মেয়াদ কমিয়ে ১০ বছর করেন। যেহেতু, ২০০৯ সাল থেকে এঁরা কারাবাস করছেন, তাই কার্যত শাস্তির মেয়াদ ১০ বছর করার অর্থ এঁরা শীঘ্রই মুক্তি পেয়ে যাবেন।

ছত্রধরদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২১ নম্বর অর্থাৎ দেশদ্রোহিতার যে ধারা চাপানো হয়েছিল তা থেকে তাঁদের মুক্তি দেওয়া হয়েছে। সেই কারণেই যাবজ্জীবন দণ্ড খারিজ করা হয়েছে। তবে ১২১এ অর্থাৎ ষড়যন্ত্র, ১২২ অর্থাৎ অস্ত্র সংগ্রহ, ১২৩ অর্থাৎ ষড়যন্ত্রের পরিকল্পনা এবং ইউএপিএ-এর ১৮ নম্বর ধারা অর্থাৎ সন্ত্রাসবাদী কাজ করার জন্য ষড়যন্ত্র করা কিন্তু শেষ পর্যন্ত ষড়যন্ত্রে লিপ্ত না হওয়ার ধারা বহাল রয়েছে যাতে সর্বোচ্চ শাস্তির মেয়াদ ১০ বছর। ইউএ পিএর-এর ২০, ৩৮, ৩৯, ৪০ অর্থাৎ ষড়যন্ত্র ও দেশদ্রোহিতায় সরাসরি লিপ্ত হওয়ার ধারাগুলিও এই চারজনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হয়নি।

অন্যদিকে রাজা সরখেল ও প্রসূন চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে শুধু ষড়যন্ত্রের অভিযোগ ছিল। বিচারপতিরা বলেন, ষড়যন্ত্রের অভিযোগ প্রমাণ করার কোনও বাস্তব ভিত্তি খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাই এঁদের বেকসুর খালাস করে দেওয়ার রায় দেন বিচারপতিরা।

Comments are closed.