বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৭

আগে ভাবতাম মমতা ভাল, এখন দেখছি বাংলাটাকে রসাতলে পাঠিয়েছে: বুনিয়াদপুরে মোদী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দিদির অস্ত্রই দিদির দিকে ছুড়লেন মোদী! দিদির স্টাইলেই।

দু’দিন আগেই একটি জনসভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, আরএসএস, বিজেপি আগের মতো নেই। ‘ ‘ ‘ভোগের ইজারাদার’ হয়ে গিয়েছে। শনিবার সকালে দক্ষিণ দিনাজপুরের বুনিয়াদপুরে জনসভা করতে এসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বললেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও আগের মতো নেই।

ভিড়ে ঠাসা বুনিয়াদপুরের জনসভা থেকে মোদী বলেন, “আমি আগে মমতাদিদিকে ভাল ভাবতাম। ভাবতাম বামেদের হাত থেকে বাংলাকে মুক্তি দিতে লড়াই করছেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর আমার সব ধারণা ভেঙে গিয়েছে। এখন দেখছি রাজ্যটাকে রসাতলে পাঠিয়ে ছেড়েছে।”

এ দিনও চিটফান্ড ইস্যুতে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণ শানান মোদী। বলেন, “চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে বাংলার লক্ষ লক্ষ মানুষ সর্বশান্ত হয়েছে। আর যারা এই দুর্নীতি করেছে, তাদেরকেই দিদি সংসদে পাঠাতে চাইছেন।” সেই সঙ্গে এ-ও বলেন যে, “২৩ মে মোদী সরকার আরও একবার ফিরে আসার পর, এই সব কিছুর হিসেব হবে। একদম পাই টু পাই।”

ভোট প্রচারের পয়লা দিনে শিলিগুড়ির জনসভা থেকে মমতার নতুন নাম দিয়েছিলেন মোদী। বলেছিলেন, ‘স্পিড ব্রেকার দিদি।’ এ দিনের জনসভায় মানুষের উচ্ছ্বাস দেখে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “গোটা দেশ বুঝতে পারছে বাংলায় বড় কিছু হতে চলেছে। মানুষের মেজাজ সেই ইঙ্গিতই দিচ্ছে।” এরপরই বলেন, “এটা মমতাও বুঝতে পারছেন। তাই স্পিড ব্রেকার দিদির ঘুমে ব্রেক পড়ে গিয়েছে।”

‘পিসি-ভাইপো’ নিয়ে এ দিনও কালীঘাটের দিকে নিশানা করেন প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে উস্কে দেন বাংলার সরকারি কর্মচারীদের অসন্তোষকেও। বলেন, “পাশের রাজ্য ত্রিপুরায় ষষ্ঠ পে কমিশন চালু হয়ে গেল, কিন্তু বাংলায় হল না। এখানে পিসি-ভাইপো গুন্ডাবাহিনীর পিছনে টাকা খরচ করেন, কিন্তু কর্মচারীদের টাকা দেন না।”

পর্যবেক্ষকদের মতে, বালুরঘাটে তৃণমূলের ভিতরেই ক্ষোভের পাহাড়। প্রার্থী নিয়েও অসন্তোষ চরমে। আর সবটা বুঝে মোদীও যেন প্রতিটি শব্দে তাকে ব্যবহার করতে চাইলেন। এখন দেখার দুপুরে নদিয়ার জনসভা থেকে মোদীকে কী জবাব দেন দিদি।

Comments are closed.