রবিবার, অক্টোবর ২০

বাঙালির ঘরে জামাই এলো, কিন্তু বর্ষা আসবে কবে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বাঙালির ঘরে জামাই এলো, তবু বৃষ্টি এলো না বঙ্গে। গত কয়েকদিন মেঘলা আকাশ, অল্পবিস্তর মেঘের গর্জন আর ছিঁটেফোঁটা বৃষ্টি ছাড়া আর কিছুই জোটেনি দক্ষিণবঙ্গের বাসিন্দাদের কপালে। তাই তারপর থেকে রসিকতা করে এমন কথাই বলছেন অনেকে।

এ বছর জামাইদের পোয়াবারো। শনিবারে পড়েছে জামাইষষ্ঠী। বেশিরভাগ জামাইয়ের এ দিন অফিস ছুটি। যাঁদের ছুটি নেই তাঁদেরও নেই সমস্যা। পরের দিন রবিবার। অতএব জমিয়ে পেটপুজো এ বার কোনওমতেই ফস্কে যাবে না। কিন্তু গরমে হাঁসফাঁস করেই যে নতুন পাঞ্জাবিতে সেজে জামাইদের ষষ্ঠী উৎসব পালন করতে হবে, তার আগাম পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। বৃষ্টির আশা তো নেইই, উল্টে বাড়তে পারে তাপমাত্রা।

আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়ে দিয়েছে, কেরলে বর্ষা এলেও বঙ্গে এখনই বর্ষা আসার সম্ভাবনা নেই। নিয়ম অনুযায়ী ১ জুন কেরল উপকূলে বর্ষা ঢোকার কথা। সে ক্ষেত্রে এই বছর নির্ধারিত সময়ের প্রায় এক সপ্তাহ দেরিতে ৮ জুন কেরলে দেখা দিয়েছে বর্ষা। আর তাই বঙ্গেও নির্ধারিত সময়ের থেকে দেরিতেই বর্ষা আসবে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।

আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, কেরলে বর্ষা আসার প্রভাবে আগামী ৪৮ ঘণ্টায় হয়তো উত্তর-পূর্ব ভারতের বেশ কিছু রাজ্য যেমন মিজোরাম বা নাগাল্যান্ডে বর্ষা ঢুকতে পারে। তবে পশ্চিমবঙ্গে বর্ষা ঢুকতে এখনও কিছুটা দেরি রয়েছে বলেই জানিয়েছেন আবহবিদরা। তাঁদের কথায় উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে একটা ঘূর্ণাবর্ত সৃষ্টি হয়েছে। তবে তার জেরে কেবলমাত্র দুই চব্বিশ পরগণা আর পূর্ব মেদিনীপুরেই বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বাকি জেলাগুলোতে বৃষ্টি হবে না বলেই জানিয়েছেন তাঁরা।

হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী, রবিবার থেকে তাপমাত্রা কিছুটা বাড়বে দক্ষিণবঙ্গে। বিশেষ করে পারদ চড়বে দক্ষিণবঙ্গের পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতে। এক ধাক্কায় পারদ চড়তে পারে ২ থেকে ৪ ডিগ্রি। ফলে ফের তীব্র গরমে অস্বস্তি বাড়বে দক্ষিণবঙ্গবাসীর। কলকাতাতেও অতিরিক্ত আর্দ্রতার কারণে ভ্যাপসা গরম বজায় থাকবে। হাঁসফাঁস করবেন শহরবাসী। তবে আগামী ৪৮ ঘণ্টা উত্তরবঙ্গের বেশ কিছু জেলায় টানা বৃষ্টি চলবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর।

Comments are closed.