মঙ্গলবার, মার্চ ২৬

‘খোদ মমতা বিজেপি-র সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন’, বিস্ফোরক দাবি মুকুল রায়ের

দ্য ওয়াল ব্যুরোউনিশের ভোটের আগে বাংলার শাসক দলকে ধাক্কা দিয়ে বুধবার বিজেপি-তে যোগ দিলেন বিষ্ণুপুরের তৃণমূল সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। কাল বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিক ভাবে যোগ দেওয়ার কথা বোলপুরের সাংসদ অনুপম হাজরার। তার আগে এ দিন বিকেলে আরও একটা বোমা ফাটালেন একদা তৃণমূলের সেকেন্ডম্যান তথা অধুনা বিজেপি নেতা মুকুল রায়।

নয়াদিল্লিতে তাঁর বাসভবনে সাংবাদিক বৈঠক করে মুকুলবাবু বলেন, খোদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপি-র নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। কারণ, তিনি এনডিএ-তে ঢোকার দরজা খোলা রাখছেন।

যদিও মুকুলবাবুর এই দাবিকে, ডাহা মিথ্যা ও অপপ্রচার বলে মন্তব্য করেছেন তৃণমূল নেতৃত্ব।

এ দিন দুপুরে বিজেপি সদর দফতরে গিয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে গেরুয়া দলে সামিল হন সৌমিত্র। তার পর তাঁকে পাশে নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করতে বসেছিলেন মুকুলবাবু। সেখানে তিনি বলেন, আজ তো শুধু ট্রেলর দেখলেন, পিকচার আভি বাকি হ্যায়। তাঁকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, তৃণমূলের আর কারা তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেনজবাবে মুকুলবাবু বলেন, মমতা ব্যানার্জি খোদ যোগাযোগ রাখছেন। তাঁর এ কথা শুনে সবাই হেসে ফেলেন। কিন্তু মুকুল থামেননি। ততটাই সিরিয়াস মুখ করে বলেন, ইয়ার্কি হচ্ছে! মমতা ব্যানার্জি এনডিএ-তে আসার জন্য খোদ যোগাযোগ রাখছেন।  

মুকুলবাবুকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, কার সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন মমতাজবাবে বিজেপি নেতা বলেন, আমাদের দলের সঙ্গে। একটা লেভেল থাকে তো!” অর্থাৎ মমতা তাঁর স্তরে বিজেপি-র নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন বলে দাবি করেন তিনি। সেই সঙ্গে বলেন, মমতা ব্যানার্জি কোন দল করবেন আর কোথায় যাবেন, সেটা কেউ বলতে পারবে না। কাল উনি কী করবেন সেটা আজ কেউ বলতে পারবে না। যেটা করে তাঁর সুবিধা হবে তিনি সেটাই করবেন।

মুকুলবাবুর এই বক্তব্য দলীয় তরফে এখনও খন্ডন করেনি তৃণমূল। বরং ইদানীং তাঁকে পাত্তা না দেওয়ার কৌশল নিয়েই চলছেন শাসক দলের নেতারা। তবে দলের একাধিক মুখপাত্র ঘরোয়া আলোচনায় বলেন, মুকুলবাবু মিথ্যা কথা বলে বাংলার মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চাইছেন। ১৯ জানুয়ারি ব্রিগেড সমাবেশের আগে তৃণমূলের কর্মীদের মনে সন্দেহ তৈরি করার চেষ্টা করছেন মুকুল। এটা ওঁর পুরনো খেলা। কিন্তু এ ভাবে মানুষকে বোকা বানাতে পারবেন না তিনি। বিজেপি-র মতো সাম্প্রদায়িক দলের বিরুদ্ধে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লড়াই করছেন, সেই লড়াই অব্যাহত থাকবে। উনিশের ভোটে মোদীকে গদি ছাড়া করাই দিদির লক্ষ্য।

তবে এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে বিধানসভায় পরিষদীয় দলনেতা তথা প্রবীণ কংগ্রেস নেতা আবদুল মান্নান বলেন, “মুকুল নতুন কথা আর কী বললেন। বিজেপি বা নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে তৃণমূলের যে যোগাযোগ রয়েছে সে তো কবে থেকেই বলছি। জন্মলগ্ন থেকে বাংলায় বিজেপি’র বি টিম হলো তৃণমূল। উপরে উপরে মমতা যাই দেখাক, তলে তলে ওঁদের আঁতাত রয়েছে।” একই মন্তব্য করেন বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী।

এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে মুকুলবাবু আরও জানান, সৌমিত্র যেমন তৃণমূলে অখুশি ছিলেন, তেমনই আরও পাঁচ জন সাংসদ অখুশি। এঁদের মধ্যে বোলপুরের সাংসদ অনুপম হাজরার কাল পরশুর মধ্যে বিজেপি-তে যোগ দেওয়ার কথা। বাকিদের নাম ক্রমশ প্রকাশ করা হবে। 

আরও পড়ুন: বাংলায় তৃণমূলকে কুড়িটার বেশি আসন জিততে দেব না, মোদী-অমিতের পাশে দাঁড়িয়ে মুকুল

Shares

Comments are closed.