সোমবার, এপ্রিল ২২

প্লিজ, বাংলায় ভোটটা ভাগ হতে দেবেন না, বামপন্থী-কংগ্রেসিদের উদ্দেশে মমতা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দিদি-র মুখে এ বার বাম নাম। সঙ্গে কংগ্রেসও।

৩ এপ্রিল থেকে লোকসভা ভোটের প্রচার শুরু করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গত দশ দিনে কত বার সিপিএম, কংগ্রেসের নাম মুখে এনেছেন হাতে গুণে বলা যায়। কিন্তু শনিবাসরীয় দুপুরে এই প্রথম বামপন্থীদের উদ্দেশে দিদি বললেন, “প্লিজ, বাংলায় ভোটটা ভাগ হতে দেবেন না। সিপিএম একটা সিটও পাবে না। আর কংগ্রেস, সে তো সাইনবোর্ড হয়ে গেছে।” ভোটারদের উদ্দেশে তাঁর আবেদন, ‘বিজেপি বিরোধী ভোট সবটাই তৃণমূলকে দিন’।

শিলিগুড়িতে বাঘাযতীন পার্কের মঞ্চে, মমতা এ দিন আরও বলেন, “যাহাই বাম, তাহাই রাম। একবার রামের ঘাড়ে শ্যাম চড়ে, আবার শ্যামের ঘাড়ে রাম। তাই বামপন্থী ভাই বোনেদের বলছি, ভোটটা কেউ সিপিএমকে দেবেন না। কংগ্রেসকেও দেবেন না। দয়া করে ভোটটা ভাঙবেন না।”

পর্যবেক্ষকদের মতে, মমতার এ কথা তাৎপর্যপূর্ণ বইকি। বাংলায় চিরাচরিত ভাবে এই ধারনাই ছিল যে বিরোধী ভোট যত ভাগাভাগি হবে ততই শাসক দলের লাভ। অতীতে সেই সুবিধা দীর্ঘদিন পেয়েছেন বামেরা। ২০০৯ সালের লোকসভা ভোটে তৃণমূল ও কংগ্রেসে জোট হওয়ার কারণেই তারা প্রথম বার ধাক্কা খেয়েছে। একই ভাবে ২০১১ সালে বামেদের ধরাশায়ী হওয়ার কারণও সেই বিরোধী জোট।

মাস খানেক আগে পর্যন্ত তৃণমূলের ধারনা ছিল সে রকমই। দলের অনেক নেতা মনে করছিলেন, বাংলায় তৃণমূল বিরোধী ভোট ভাগাভাগি হয়ে গেলে তাঁরা সুবিধা পাবেন। তাই বাম কংগ্রেসে জোট না হওয়ায় শাসক দলের অনেক নেতাই খুশি ছিলেন।

কিন্তু পরিস্থিতি যত এগোচ্ছে, তৃণমূলও ধন্ধে পড়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকায় তৃণমূল এ চিন্তায় পড়ে গিয়েছে। কারণ বিজেপি যখন ধর্মীয় মেরুকরণ ও বাংলায় প্রতিষ্ঠানবিরোধিতার প্রশ্নে সংখ্যাগুরু ভোটের মেরুকরণ করার চেষ্টা করছে, তখন সংখ্যালঘু ভোটের দিকে তৃণমূলের মতই হাত বাড়াচ্ছে সিপিএম ও কংগ্রেস। বিশেষ করে, রায়গঞ্জ, জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং, উত্তর মালদহ, বালুরঘাটের মতো আসনে। চিরাচরিত ভাবে সেখানে বাম ও কংগ্রেসই শক্তিশালী ছিল, তুলনায় বাংলায় ক্ষমতা দখল করেও ওই সব এলাকায় দুর্বল ছিল তৃণমূল। রাজ্যের শাসক দলের নেতারা মনে করছেন, সংখ্যালঘু ভোটে কংগ্রেস ও বামেরা ভাগ বসালে উল্টে লাভবান হয়ে যেতে পারে বিজেপিই।

অনেকের মতে, এ সব সাত পাঁচ অঙ্ক কষে প্রথম দফার ভোট পর্যন্ত প্রচারে সিপিএম-কংগ্রেসের নাম পর্যন্ত মুখে আনেননি মমতা। যাতে বামেরা বা কংগ্রেস কোনও প্রাসঙ্গিকতা না পায়। কিন্তু হয়তো তাতে পুরোপুরি কাজ হচ্ছে না বুঝে, মোদ্দা ব্যাপারটা এ দিন খোলাখুলিই বলেছেন মমতা।

Shares

Comments are closed.