সোমবার, মার্চ ২৫

মুনমুনকে নিয়ে ব্যঙ্গ, বাবুলকে ‘আনকালচারড’ বললেন দিদি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মঙ্গলবার বিকেলে প্রার্থী তালিকায় চমক দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একাধিক জেতা সাংসদকে টিকিট না দেওয়া থেকে মিমি, নুসরতকে ভোটের ময়দানে নামানো, সবই ছিল তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায়। দিদি চমক দিয়েছেন মুনমুন সেনকে নিয়েও। বাঁকুড়ার বদলে সুচিত্রা-কন্যাকে দিদি এ বার টিকিট দিয়েছেন আসানসোল থেকে। আর ওমনি আসানসোলের বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় টুইট করে ‘বিদ্রুপ’ করেছিলেন মুনমুনকে নিয়ে। বুধবার তা নিয়েই বাবুলকে ‘আনকালচারড’ বললেন মমতা।

বাবুল গতকাল টুইট করে লিখেছিলেন, “আসানসোলের ভোটে মমতাজি আমাকে সব সময় সেন-সেশনাল প্রতিপক্ষই উপহার দেন।” গতবার বাবুলের বিরুদ্ধে তৃণমূল প্রার্থী করেছিল দোলা সেনকে। আর এ বার মুনমুন সেন। সেটাকেই ‘সেন-সেশনাল’ বলেছেন বাবুল। এ দিন মমতাকে বাবুলের ‘সেন-সেশনাল’ টুইট নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি ব্যাপারটা বুঝতে পারেননি। দলের নেতাদের কাছে জানতে চান, কী লিখেছেন? তক্ষুণি পাশ থেকে শ্রীরামপুরের প্রার্থী তথা আইনজীবী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় ছুটে গিয়ে দিদির কানে কানে বাবুলের টুইটটি বলেন। তখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আমি দুঃখিত। এরা সব আনকালচারড। বিজেপি-তে অনেক কালচারড মানুষ আছেন। আমি তাঁদের সম্মান করি। কিন্তু এই ধরনের আচরণ আনকালচারড।’

এখানেই থামেননি মমতা। গায়ক সাংসদের বিরুদ্ধে আক্রমণের মাত্রা বাড়িয়ে বলেন, “ভাষা কী ভাবে বলতে হয় জানেন না। এ বার হারবেন জেনে গিয়েছেন, তাই এ সব লিখছেন। জামানত বাজেয়াপ্ত হবে।” মমতা বলেন, “উনি জানেন না মুনমুন সেন কোন পরিবার থেকে এসেছেন। উনি শুধু চিত্রতারকা নন। উনি সুচিত্রা সেনের কন্যা।”

পর্যবেক্ষকদের মতে, আসানসোলে আর কাউকে প্রার্থী খুঁজে না পেয়ে বাধ্য হয়েই মুনমুন সেনকে দাঁড় করিয়েছে তৃণমূল। দলের ভিতরকার কাজিয়ার জন্যই সেখানে স্থানীয় নেতাদের দাঁড় করাননি দিদি। আর এতেই বদলে গিয়েছে বাবুলের শরীরী ভাষা। যেন দ্বিতীয়বারের জন্য দিল্লি যাওয়া প্রায় পাকা করে ফেলেছেন নরেন্দ্র মোদীর স্নেহধন্য এই সাংসদ। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ দিন জানিয়ে দেন, ৪১ শতাংশ মহিলা প্রার্থী লোক দেখাতে দাঁড় করানো হয়নি। তাঁর দাবি, এঁরা সবাই জিতবেন। এখন দেখার আসানসোলে পদ্মফুলের জমিতে ঘাসফুল ফোটে, নাকি দ্বিতীয়বার দিল্লি যাবেন  বাবুল।

আরও পড়ুন:

আসানসোলে মুনমুন, বাবুল বললেন ‘মমতার সেন-সেশনাল উপহার’

Shares

Comments are closed.