শনিবার, সেপ্টেম্বর ২১

আইন করুন বাংলায় প্রতিবাদ করা যাবে না, পার্শ্ব শিক্ষকদের পুলিশের মার নিয়ে মমতাকে কটাক্ষ অধীরের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পার্শ্ব শিক্ষকদের আন্দোলনে পুলিশি ‘আক্রমণ’ নিয়ে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী তথা পুলিশমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন লোকসভায় কংগ্রেস দলনেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী। রবিবার বহরমপুরে জেলা মুর্শিদাবাদ জেলা কংগ্রেস দফতরে সাংবাদিক সম্মেলন করে এই ডাকাবুকো কংগ্রেস নেতা বলেন, “সামনেই বিধানসভার অধিবেশন শুরু হবে। মুখ্যমন্ত্রী একটা আইন বিল এনে আইন করে দিন যে, এই বাংলায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা যাবে না।”

বহরমপুরের পাঁচ বারের সাংসদ এ দিন বলেন, “দ্বিতীয়বার তৃণমূলে সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই শিক্ষক সমাজের উপর আক্রমণ নামিয়ে এনেছে। তাঁরা তো সম কাজে সম বেতনের দাবি করছেন। এটা তো সুপ্রিম কোর্টের বক্তব্য। সেখানে মুখ্যমন্ত্রীর পুলিশ গিয়ে শিক্ষিকাদের মারছে, শ্লীলতাহানি করছে।”

বাংলায় শিক্ষার মান ক্রমশ কমছে বলেও মন্তব্য করেন প্রাক্তন রেল প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, “বাংলায় শিক্ষার মান যদি উর্দ্ধমূখী হতো, তাহলে এ রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে চলে যাওয়ার ঢল নামত না।”

সমকাজে সম বেতন, স্থায়ীকরণ-সহ একাধিক দাবি নিয়ে শুক্রবার থেকে আন্দোলন শুরু করেছে পার্শ্ব শিক্ষক ঐক্য মঞ্চ। ওই দিন বিরাট জমায়েত নিয়ে মিছিল যায় বিকাশ ভবনের দিকে। পরিকল্পনা ছিল, শিক্ষামন্ত্রীর কাছে ডেপুটেশন দেওয়ার। কিন্তু সে দিন শিক্ষামন্ত্রী সিবিআই দফতরে হাজিরা দেওয়ার জন্য দফতরে ছিলেন না। তাঁরা অবস্থান শুরু করে ওই তল্লাটেই। কিন্তু উঠিয়ে দেয় পুলিশ। ধর্মতলা ঘুরে আন্দোলনকারীরা যান ব্যারাকপুরে। সেখান থেকেও তাঁদের সরিয়ে দেয় প্রশাসন। তারপর তাঁরা যান কল্যাণীতে। সেখানেই শনিবার সন্ধেবেলা, আলো নিভিয়ে পার্শ্ব শিক্ষকদের বেধড়ক পেটানোর অভিযোগ উঠেছে একাংশের পুলিশের বিরুদ্ধে। অভিযোগ, মহিলাদের পোশাক ছিঁড়ে দিয়েছে পুরুষ পুলিশ।

ওই ঘটনা নিয়ে শনিবার রাত থেকে তপ্ত রাজ্য রাজনীতি। রবিবার ফের অবস্থান শুরু করেছেন তাঁরা। পুলিশের মারধরের ভিডিও ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। ক্রমশ যখন নাগরিক সমর্থন পেতে শুরু করেছেন পার্শ্ব শিক্ষকরা, তখন তৃণমূল বিরোধী ক্ষোভকে আরও খানিকটা উস্কে দিলেন অধীর।

Comments are closed.