বুধবার, আগস্ট ২১

হলদিয়া লোকালে দুষ্কৃতী হামলা, বাধা দিতে গেলে মহিলা যাত্রীর পেটে ছুরি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ট্রেনের মহিলা কামরায় দুষ্কৃতী হামলা। এক মহিলার পেটে ছুরি মেরে খুনের চেষ্টা দুষ্কৃতীদের।ধস্তাধস্তিতে হাত এবং পেটে গুরুতর চোট পেয়েছেন ওই মহিলা। নিরাপত্তাহীনতার অভিযোগ রেলের বিরুদ্ধে।

শনিবার রাতে হাওড়া-হলদিয়া লোকাল ট্রেনে তমলুক থেকে ছেলেকে নিয়ে মহিলা কামরায় উঠেছিলেন এক মহিলা। হলদিয়া যাওয়ার কথা ছিল তাঁর। ট্রেনটি বন্দর স্টেশনের ঢোকার পর কামরার বাকি সব যাত্রী নেমে পড়েন। ছোট ছেলেকে নিয়ে একাই ওই কামরায় ছিলেন মহিলা। এরপর ট্রেন বন্দর স্টেশন ছাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই ওই মহিলা কামারায় এক যুবক প্ল্যাটফর্ম থেকে লাফিয়ে উঠে পড়ে। মহিলার অভিযোগ, ট্রেনের কামরায় মহিলাকে একা পেয়ে ওই যুবক ছুরি বের করে। ভয় দেখিয়ে মহিলার সর্বস্ব লুঠ করে নিতে চায়। ভয়ে-আতঙ্কে চিৎকার শুরু করেন ওই মহিলা। এরপর ট্রেনের চেন টানতে গেলেই ওই যুবক মহিলার পেটে সটান ছুরি চালিয়ে দেয় বলে অভিযোগ।

শুরু হয় ধস্তাধস্তি। যুবকের হাত চেপে ধরেন মহিলা। সে সময় ছুরির আঘাতে চোট পান হাতেও। পরের স্টেশনে কামরায় ওঠেন এক বৃদ্ধা। তাঁকে দেখেই ট্রেন থেকে লাফ দিয়ে নেমে চম্পট দেয় ওই যুবক। ততক্ষণে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছিলেন ওই মহিলা। ভয় পেয়েছিল বাচ্চাটিও। অভিযোগ, বারবার চিৎকার করে সাহায্য চাইলেও কেউ এগিয়ে আসেননি। এমনকী রেলের তরফেও কোনও সাহায্য করা হয়নি বলেই অভিযোগ করেছেন আক্রান্ত মহিলা। অনেক পরে ট্রেন হলদিয়া পৌঁছলে কামরায় থাকা বৃদ্ধার সহযোগিতায় গোটা ব্যাপারটা রেল পুলিশকে জানানো হয়। কিন্তু তার পরেই প্রথমে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ।

মহিলা জানিয়েছেন, অনেকক্ষণ পর রেল পুলিশের তরফে তাঁকে হলদিয়া মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু মহিলার অভিযোগ, গোটা ব্যাপারটাই তাঁকে চেপে যাওয়ার কথা বলেছে রেল পুলিশ। এমনকী তাঁর চিকিৎসার খরচও দিতে চায়নি রেল কর্তৃপক্ষ। ট্রেনের মহিলা কামরায় এ ধরণের ঘটনা ঘটায় যাত্রীদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে। রেল পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে গোটা ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Comments are closed.