বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪

দু’টো কানই ছিঁড়লো যাত্রীর, বাসের রেষারেষিতে দুর্ঘটনা গড়িয়াহাটে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ফের বাসের রেষারেষিতে কান খোয়াতে হলো এক যাত্রীকে। গড়িয়াহাটের কাছে দুটি বাসের রেষারেষিতে কান ছিঁড়ে গেল যাত্রীর। শুক্রবার সকালে এই দুর্ঘটনা ঘটে গড়িয়াহাট মোড়ে। প্রথমে অ্যাম্বুল্যান্স না পেয়ে স্থানীয়রা ট্যাক্সি করেই গুরুতর আহত অবস্থায় ওই যাত্রীকে নিয়ে যান ঢাকুরিয়ার আমরি হাসপাতালে। পরে তাঁকে ই এম বাইপাসের ধারে একটি হাসপাতালে নিয়ে যায় পরিবার। সূত্রের খবর, চিকিৎসকরা জানিয়েছেন প্লাস্টিক সার্জারি করতে হবে ওই যাত্রীর। আঙুলে এবং কনুইতেও চোট লেগেছে ওই ব্যক্তির।

জানা গিয়েছে, আহতের নাম সমীর পাল (৬৫)। তিনি ঢাকুরিয়ারই বাসিন্দা। শুক্রবার সকালে ২১২ নম্বর বাসে চড়েছিলেন তিনি। পাশে থাকা ১৩সি রুটের একটি বাসকে ওভারটেক করতে গিয়েই ঘটে বিপত্তি। দুটি কানই ছিঁড়ে গিয়েছে সমীরবাবুর। চিকিৎসকরা জানিয়েছে, প্লাস্টিক সার্জারি ছাড়া কাল জোড়া লাগানোর উপায় নেই। কারণ শরীরের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে দুটি কানই। বয়স হয়ে যাওয়ায় অন্য কোনও উপায়ে কান জোড়ার ক্ষেত্রে ঝুঁকিও রয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। ইতিমধ্যেই দুটি ঘাতক বাসের চালক এবং খালাসিকে আটক করেছে পুলিশ। বাস দুটিকেও নিয়ে আসা হয়েছে গড়িয়াহাট থানায়।

খুব কম দিনের মধ্যেই এই নিয়ে পরপর তিনবার এমন মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটলো শহরের বুকে। ক’দিন আগেই টালিগঞ্জ ট্রাম ডিপোর কাছে পৈলান থেকে হাওড়়াগামী ১২সি/১বি রুটের একটি বেসরকারি বাস পাশের আর একটি বাসকে ওভারটেক করতে যায়। সেই সময়েই ওই বাসের পাদানিতে দাঁড়িয়ে ছিলেন নারায়ণ মালিক। তখনই গুরুতর চোট পান ওই যাত্রী। আহত যাত্রীকে প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় এমআর বাঙ্গুর হাসপাতালে। তারপর সেখান থেকে তাঁকে পাঠানো হয় এসএসকেএম-এ। চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, সম্ভবত অস্ত্রোপচার করে বাদ দিতে হবে নারায়ণ মালিকের কান।

এই ঘটনার কদিন আগে টালিগঞ্জ করুণাময়ী ক্রসিংয়ের কাছেও ঠিক একই ভাবে দুর্ঘটনা ঘটেছিল। হরিদেবপুর থেকে ৪০ এ বাসে চেপে টালিগঞ্জ ট্রাম ডিপোর দিকে যাচ্ছিলেন বছর পঁয়তাল্লিশের উৎপল কর্মকার। জানলার পাশের সিটে বসে বেশ খানিকটা হাত বের করে রেখেছিলেন তিনি। ক্ষণিকের অসতর্কতায় ক্রসিংয়ের কাছে রাস্তার গা ঘেঁষা একটি নির্মীয়মাণ বাড়ির পিলারে সজোরে ধাক্কা লাগে। কনুইয়ের নীচ থেকে কেটে ছিটকে যায় তাঁর বাঁ হাত। আহত উৎপলবাবুকেও নিয়ে যাওয়া হয় এমআর বাঙ্গুর হাসপাতালে। তবে অস্ত্রোপচার করে ক্ষত মেরামত করা সম্ভব হলেও হাতের কাটা অংশ জোড়া লাগানো যায়নি।

Comments are closed.