বুধবার, নভেম্বর ২০
TheWall
TheWall

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ নিয়ে সতর্কতা পশ্চিমবঙ্গ-ওড়িশায়, সপ্তাহ শেষে বৃষ্টির সম্ভাবনা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আন্দামান সাগর লাগোয়া পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে ঘনীভূত হচ্ছে গভীর নিম্নচাপ। যা নিতে পারে ঘুর্ণিঝড়ের আকার। তার প্রভাব পড়তে পারে পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা ও অন্ধ্রপ্রদেশের উপকূল ভাগে। এমনটাই জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। মৌসম ভবন সূত্রে খবর, সপ্তাহ শেষে আবহাওয়া বদলাবে দক্ষিণবঙ্গের। গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলিতে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। দুই মেদিনীপুরে হতে পারে ভারী বৃষ্টি।

ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণ করেছে পাকিস্তান। নাম দেওয়া হয়েছে বুলবুল। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় বুলবুলের প্রভাবে দক্ষিণবঙ্গের অন্তত তিনটি জেলায় হতে পারে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি। হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, শুক্রবার থেকে দক্ষিণবঙ্গের আকাশ মেঘলা হতে শুরু করবে। শনিবার বৃষ্টি শুরু হবে। রবিবার থেকে বদল হতে পারে পরিস্থিতি। তবে বুলবুল ঠিক কথায় তাণদব চালাবে তা এখনও স্পষ্ট নয় বলে জানাচ্ছেন আবহাওয়াবিদরা।

ইতমধ্যেই উপকূলবর্তী এলাকায় জারি হয়েছে সতর্কতা। মৎস্যজীবীদের সমুদের যেতে নিষেধ করা হয়েছে। কয়েক মাস আগেই ফণীর তাণ্ডব দেখেছিল ওড়িশা। লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছে পুরী, ভুবনেশ্বর। প্রভাব পড়েছিল বাংলাতেও। তবে হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, বুলবুল অতটা শক্তিশালী নয়। তবে এগোতে এগোতে শক্তি বাড়তে পারে তার।

শুক্রবার এটি অবস্থান করতে পারে অন্ধ্র ও ওড়িশা উপকূলের কাছাকাছি। শনিবার এর তীব্রতা আরও বাড়তে পারে। এর ফলে ওই দুই রাজ্যের উপকূলবর্তী এলাকায় ভারী বৃষ্টি সম্ভাবনা রয়েছে। এর প্রভাব পড়তে পারে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে। তবে তা নির্ভর করবে নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার উপর।

অন্যদিকে আরও শক্তি সঞ্চয় করছে পূর্ব-মধ্য আরব সাগরে সৃষ্টি হওয়া ঘূর্ণিঝড় ‘মহা’। বুধবার গভীর রাতে বা বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে তা আছড়ে পড়তে পারে গুজরাত উপকূলে। ঝড়ের গতি হতে পারে ৯০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। এর প্রভাব পড়তে পারে মহারাষ্ট্রের মুম্বই ও থানেতেও। মহার প্রভাবে ভারী বৃষ্টি হতে পারে গুজরাতের জুনাগড়, গীর, সোমনাথ, আমরেলি, সুরাট, ভারুচ, আনন্দ, আহমেদাবাদ-সহ রাজ্যের একটি বিশাল এলাকায়।

Comments are closed.