রবিবার, জানুয়ারি ১৯
TheWall
TheWall

সপ্তাহ শেষে এক লাফে দিঘায় হাজির আড়াই লাখ পর্যটক, ভিড় সামলাতে নাজেহাল পুলিশ

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গত বুধবার ছিল খুশি ঈদ। তারপর বৃহস্পতিবার আর শুক্রবার ছুটি নিলেই কেল্লাফতে। শনি-রবি মিলিয়ে এক্কেবারে টানা পাঁচ দিনের ছুটি। এই উইকেন্ডেই আবার ছিল জামাইষষ্ঠীর অনুষ্ঠান। অনেকেই প্ল্যান করেছিলেন একটু অন্যভাবে এ বছরের জামাইষষ্ঠী পালন করবেন। সপরিবার অনেকেই জামাইষষ্ঠী সেলিব্রেশনে পাড়ি দিয়েছিলেন দিঘার সৈকতে।

অনুমান এই জন্যই হয়তো দিঘায় পর্যটকদের সংখ্যা বেড়েছে এক লাফে বেড়েছে অনেকটা। দিঘা প্রশাসন এবং দিঘা হোটেলিয়ার্স এসোসিয়েশনের তরফে জানানো হয়েছে এই উইকেন্ডে প্রায় আড়াই লক্ষ পর্যটকের সমাগম ঘটেছে দিঘায়। বেশিরভাগ হোটেলেই রুম পাওয়া যাচ্ছে না। আশেপাশে বাসিন্দাদের অনেকেই সাময়িক ভাবে নিজেদের বাড়ি ভাড়া দিতে শুরু করেছেন। শোনা যাচ্ছে, দূরদূরান্ত থেকে বেশ কিছু পর্যটক নাকি রাস্তাতেই রাত কাটাতে বাধ্য হয়েছেন। কারণ দিঘার কোনও হোটেলের ঘর ফাঁকা নেই। পর্যটকদের একাংশ অভিযোগ করেছেন পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে কিছু অসাধু হোটেল ব্যবসায়ী রুমের ভাড়া প্রায় তিনগুণ পর্যন্ত বাড়িয়ে দিয়েছে। নিরুপায় হয়ে পর্যটকরা বেশি টাকা দিয়েই রুম ভাড়া নিতে বাধ্য হচ্ছেন। অনেক পর্যটকই হোটেলে রুম না পেয়ে বাড়িও ফিরে আসছেন বলে খবর। 

একসঙ্গে এত পর্যটক চলে আসায় দিঘার বিচে পর্যটকদের ভিড় সামাল দিতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে পুলিশ। চলছে কড়া নজরদারি। সমুদ্রের বেশি গভীরে কাউকেই যেতে দেওয়া হচ্ছে না। ওয়াচ টাওয়ার থেকে এবং স্পিডবোটে করে নজরদারি চালাচ্ছে পুলিশ। সব মিলিয়ে পর্যটকদের জনস্রোতে দিঘায় এখন শ্বাস নেওয়ার উপক্রম নেই বলে জানাচ্ছে পুলিশ।

এর মধ্যেই কয়েকদিন আগে প্রশাসনের নির্দিষ্ট করে দেওয়া ঘাটের বাইরে স্নান করতে নেমে তলিয়ে গিয়েছে এক কিশোর। বাকি চারজনকে কোনওমতে উদ্ধার করেন নুলিয়ারা। এই ঘটনার পর ফের দিঘার সমুদ্র থেকে উদ্ধার হয়েছে আরও এক যুবকের দেহ। যদিও তাঁর পরিচয় এখনও জানা যায়নি বলেই জানিয়েছে পুলিশ। তবে প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, এই দেহ সম্ভবত কোনও পর্যটকের। কারণ এখন মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে মাছধরা নিষেধ। ফলে এই দেহ মৎস্যজীবীদের হওয়ার সম্ভাবনা কম। কিন্তু শনিবার পুলিশের কাছে কোনও মিসিং ডায়েরি জমা পড়েনি। আর মৃতদেহ দেখে পুলিশের অনুমান, শনিবারের আগে এই ঘটনা ঘটেনি। তাই এটা দুর্ঘটনা নাকি খুনের ঘটনা কিনা তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ। কারণ মৃতের মাথায় গভীর ক্ষতর চিহ্ন রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। পরিসংখ্যান বলছে গত পাঁচদিনে দিঘায় মৃত্যু হয়েছে ২ জনের।

Share.

Comments are closed.