বুধবার, অক্টোবর ১৬

নিগ্রহ করত ‘প্রেমিক’, প্রত্যাখ্যান করেছিল বিয়ের প্রস্তাবও! তিন পাতার সুইসাইড নোট লিখে আত্মঘাতী কিশোরী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ১৮ বছর হতে আর তিন-চার দিন বাকি ছিল মেয়েটির। কিন্তু তার আগেই রবিবার রাতে নিজের ঘর থেকে ওড়নার ফাঁসে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হল তার। জলপাইগুড়ির কাদোবাড়ি এলাকায় সুবর্ণা রায় নামের কিশোরীর এই অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। আর এই তদন্তের অন্যতম চাবিকাঠি, সুবর্ণার সুইসাইড নোট।

জলপাইগুড়ির প্রসন্নদেব মহিলা মহাবিদ্যালয়ের ফার্স্ট ইয়ারে ছাত্রী সুবর্ণা তার তিন পাতার সুইসাইড নোটে দাবি করেছে, পাশের গ্রামের বাসিন্দা শিবু রায় নামের একটি ছেলের সঙ্গে তার বছর দুয়েকের সম্পর্ক ছিল। যথেষ্ট ঘনিষ্ঠতাও ছিল। কিন্তু তার সঙ্গে একাধিক বার সহবাস করার পরেও বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে শিবু। এমনই অভিযোগ সুবর্ণার। শুধু তা-ই নয়, তার দাবি, শিবু একাধিক বার তার উপরে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনও করেছে।

শিবু ছাড়াও আরও দু’টি ছেলের নাম রয়েছে ওই নোটে। সুবর্ণার দাবি, তারা ফোন করে যৌন হেনস্থা করত তাকে। সব মিলিয়ে মানসিক চাপ সহ্য করতে না পেরে নিজেকে শেষ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সে।

রবিবার রাতে পুলিশ গিয়ে সুবর্ণার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করে। আজ, সোমবার সকালে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে তার পরিবার। সুইসাইড নোটের ভিত্তিতেই দায়ের করা হয়েছে অভিযোগটি। জলপাইগুড়ি মহিলা থানার ওসি উপাসনা গুরুং বলেন, “ধর্ষণের অভিযোগও রয়েছে সুইসাইড নোটে। মেয়েটির দেহের ময়না-তদন্ত হোক, তার পরে মামলা রুজু করা হবে।”

সুবর্ণার বাবা কেশবচন্দ্র রায় পেশায় দিনমজুর। তিনি জানান, পাশের গ্রামেরই ছেলে শিবু রায়। পারিবারিক চেনাজানা ছিল। কিন্তু এত কিছু হয়ে গেছে, তা ভাবতেও পারেননি তিনি। পুলিশ জানিয়েছে, শিবুর খোঁজ চলছে।

পড়তে ভুলবেন না…

Comments are closed.