কোয়েসের জাল ছিঁড়ল ইস্টবেঙ্গল, বিনিয়োগ আসছে আশিয়ান সূত্রে! হাত বাড়ালেন প্রসূন

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো: কোয়েসের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন হল ইস্টবেঙ্গলের। শেষ পর্যন্ত বহু প্রতিক্ষীত এনওসি ও স্পোর্টিং রাইটস ফেরত পেল লাল-হলুদ। শুক্রবার বিকেলেই সমস্ত কাগজপত্র হাতে পান ইস্টবেঙ্গল কর্তারা। একই সঙ্গে নতুন বিনিয়োগের ব্যাপারেও অনেক দূর এগিয়ে গিয়েছে শতবর্ষে পা দেওয়া ক্লাবটি।

    কথা এগিয়েছে অনেকটা। চলছে আইনী কাজকর্ম। সব ঠিকঠাক থাকলে বিনিয়োগের ফয়সালা করে ফেলতে চলেছে লাল-হলুদ। এ ব্যাপারে লেসলি ক্লডিয়াস সরণির শতবর্ষে পা দেওয়া ক্লাব কর্তারা এখনই কিছু বলতে না চাইলেও, একটি ওয়েবসাইটকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সিঙ্গাপুর নিবাসী বাঙালি শিল্পপতি প্রসূন মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ইস্টবেঙ্গলে বিনিয়োগের বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন তিনি।

    তাঁর তরফে তাঁর আইনজীবীরা সমস্ত দিকটা দেখছেন। কোয়েসের থেকে ইস্টবেঙ্গলের স্পোর্টিং রাইটস পাওয়া বা নতুন প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি তৈরির বিষয়ে প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছেন এই শিল্পপতি। তবে কত শতাংশ শেয়ার তাঁর সংস্থা ইউএসইএল-এর থাকবে তা খোলসা করেননি প্রসূনবাবু।

    তিনি শুধু ওই সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, ইস্টবেঙ্গল কর্তা দেবব্রত সরকার তথা নিতু তাঁকে প্রস্তাব দিয়েছিলেন এবং তিনি তাতে রাজি হয়ে যান। তিনি এও জানিয়েছেন, নিতু যে ভাবে ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে তাঁর সঙ্গে কথা বলেছেন তাতে তিনি আপ্লুত।

    হাতে সময় কম। ইস্টবেঙ্গলকে আইএসএল খেলতে হলে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় আপাতত জোড়া কাজ করতে হত। এক, কোয়েসের অজিত আইজ্যাকদেরে সঙ্গে সমসত জটিলতা চুকিয়ে স্পোর্টিং রাইটস ফেরত পাওয়া। তা এদিন সম্পন্ন হয়েছে। এবং দুই, এবার প্রসূন মুখোপাধ্যায়ের শিল্পগোষ্ঠীর সঙ্গে চুক্তি চূড়ান্ত করতে হবে। তারপরও আইএসএল খেলার ব্যাপারে নিশ্চয়তা থাকবে। যদিও লাল-হলুদ কর্তাদের আশা , এগুলো সেরে ফেলতে পারলে বাকি গুলোও হবে। এবং তাতে অন্যতম ভূমিকা নিতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

    সন্দেহ নেই শতবর্ষটা একেবারেই ভাল যায়নি লাল-হলুদের। বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে গণ্ডগোল, ট্রফি না আসা—সব মিলিয়ে চাপা অশান্তির মধ্যেই কেটেছে কলকাতা ময়দানের অন্যতম প্রধান শক্তির। তার উপর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বি মোহনবাগান এটিকের সঙ্গে জুড়ে আইএসএল খেলা নিশ্চিত করে ফেলেছে। যা সমর্থকদের চাপ বাড়িয়েছে ক্লাবের উপর।

    এমনিতে প্রসূন মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে ইস্টবেঙ্গলের সম্পর্ক দেড় দশকের বেশি সময় ধরে। ২০০৩ সালে আশিয়ান কাপের সময়ে জাকার্তায় সারাক্ষণ ইস্টবেঙ্গল টিমের সঙ্গে ছিলেন এই শিল্পপতি। নিজের হোটেলে রাখা থেকে বিভুঁইয়ে ওকোরো, ডগলাস, বাইচুং, মুসাদের যাবতীয় আতিথেয়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন তিনি। সেই সূত্রেই ফের ইস্টবেঙ্গলের যুক্ত হতে চলেছেন এই শিল্পপতি। তবে অবশ্যই আইনি জটিলতা কাটলে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More