বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৫

দাড়িভিটে বামেদের সভা নিয়ে ‘জটিলতা’, সেলিম বললেন বাধা দিলে বাঁধবে লড়াই

দ্য ওয়াল ব্যুরো: যে দিন তৃণমূল ব্রিগেডে মহা সমাবেশের ডাক দিয়েছে, সে দিনই উত্তর দিনাজপুরে দাড়িভিটে সমাবেশ ডেকেছে বামেরা। সিপিএমের যুব সংগঠন ডিওয়াইএফআই-এর ডাকা সেই সমাবেশে প্রশাসন অনুমতি দিতে টালবাহানা করছে বলে অভিযোগ তুললেন সিপিএমের পলিটব্যুরোর সদস্য তথা রায়গঞ্জের সাংসদ মহম্মদ সেলিম।

শিক্ষক নিয়োগ, সুষ্ঠু শিক্ষা ব্যবস্থা-সহ দাড়িভিটকে স্বাভাবিক করার দাবিতে মমতার ব্রিগেডের দিন উত্তরবঙ্গে সভা করার সিদ্ধান্ত নেয় বাম যুব সংগঠন। সভায় ভাষণ দেওয়ার কথা সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরির। শনিবার সভা। প্রচারও চলছে জোর কদমে। কিন্তু বুধবার সন্ধে পর্যন্ত পুলিশ কিছু জানায়নি বলে দাবি সিপিএমের।

গত সেপ্টেম্বর মাসে শিক্ষক নিয়োগের দাবিতে স্থানীয়দের আন্দোলনে নিহত হন ইসলামপুরের দাড়িভিট হাই স্কুলের প্রাক্তন দুই ছাত্র রাজেশ সরকার এবং তাপস বর্মন। অভিযোগ ওঠে পুলিশের গুলিতে মৃত্যু হয়েছে ওই দুই তরুণের। সে অভিযোগ কার্যত উড়িয়ে দেওয়া হয় সরকারের তরফে। তৃণমূল পাল্টা অভিযোগ তোলে, দাড়িভিটে সঙ্ঘের লোকেদের মদতেই গণ্ডগোল হয়েছে। এ নিয়ে বাংলা বনধের ডাক দেয় বিজেপি। নিহত দুই ছাত্রের পরিবারকে নিয়ে রাষ্ট্রপতি এবং জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কাছে নিয়ে যায় বঙ্গ বিজেপি-র নেতারা।

এরপর সময় গড়িয়েছে। কিন্তু স্বাভাবিক হয়নি দাড়িভিট। প্রথমে তালা বন্ধ থেকেছে স্কুল। পরে খুললেও ফের বন্ধ হয়ে যায়। সিবিআই তদন্তের দাবিতে অনড় তাপস-রাজেশের পরিবার প্রত্যাখ্যান করে সরকারের দেওয়া ক্ষতিপূরণও। স্থানীয় তৃণমূলের বিধায়ক নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গেলে তাঁকেও ফিরিয়ে দেয় পরিবার। রাজেশের মা ক্ষোভ উগরে দেন মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে।

এ দিন সেলিমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “এতগুলো মাস কেটে গেল, তবু অপদার্থ সরকার দাড়িভিটের অবস্থা স্বাভাবিক করতে পারল না। গোটা জেলায় শিক্ষক নিয়োগ স্থগিত করে দিয়েছে। আর এখন বামেদের সভার অনুমতি দিতে টালবাহানা করছে। তবে এ সব করে লাভ নেই। ওরা বাধা দিলে লড়াই বাঁধবেই।”

যদিও উত্তর দিনাজপুরের পুলিশের বক্তব্য, হাইকোর্টের রায় রয়েছে ওই মাঠে কোনও জমায়েত করা যাবে না। প্রসঙ্গত, দিন ১৫ আগে তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের পরিবহণ ও  পরিবেশমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর সভাও প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে সরিয়ে দিয়েছিল প্রশাসন। তবে সিপিএমের একটি সূত্রের মতে, স্কুলের পাশে একটি মাঠে সভা করার অনুমতি চাওয়া হয়েছে। এখন দেখার সেই অনুমতি মেলে কি না।

Shares

Comments are closed.