রবিবার, এপ্রিল ২১

তৃণমূলের প্রচারে বাংলাদেশের অভিনেতা ফিরদৌস, কমিশনে যাচ্ছে বিজেপি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: টলিউড, বলিউড পেরিয়ে সটান বাংলাদেশ। তৃণমূলের প্রচারে আন্তর্জাতিক ছাপ। আর তাই নিয়েই কমিশনে যাচ্ছে বিজেপি।

পয়লা বৈশাখের দিন রায়গঞ্জের তৃণমূল প্রার্থী কানহাইয়ালাল আগরওয়ালের সমর্থনে প্রচার করলেন বাংলাদেশের অভিনেতা ফিরদৌস। আর তাই নিয়েই তৈরি হল বিতর্ক। বিজেপি-র বক্তব্য, ভারতবর্ষের নির্বাচনের প্রচারে কীভাবে বাংলাদেশের নাগরিককে প্রচারে আনল বাংলার শাসক দল। এ দিনের প্রচারের ছবি, ফুটেজ কমিশনে জমা দেবে গেরুয়া শিবির।

ফিরদৌস এখানকার অনেক বাংলা ছবিতেও অভিনয় করেছেন। কত ছবিতে যে ঋতুপর্ণার নায়কের ভূমিকায় তিনি ছিলেন তার ইয়ত্তা নেই। রায়গঞ্জ যেহেতু সীমান্তবর্তী এলাকা, অনেকে মনে করছেন মানুষের সেই সেন্টিমেন্টকে কাজে লাগাতেই শাসকদল প্রচারে বাংলাদেশের স্টারকে নিয়ে এসেছে। ফিরদৌসের সঙ্গে ছিলেন টলিউডের অঙ্কুশ এবং পায়েলও।

বাংলাদেশের অভিনেতাকে তৃণমূলের প্রচারে দেখে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি বিজেপি রাজ্যসভাপতি দিলীপ ঘোষ। তাঁর কথায়, “আজকে ফিরদৌসকে এনেছে, কালকে দেখবেন ইমরান খানকে ডেকে নিয়ে আসবে।” রায়গঞ্জে এ বার চতুর্মুখী লড়াই। গতবার এই আসন জিতেছিল সিপিএম। মাত্র হাজার দেড়েক ভোটের ব্যবধানে কংগ্রেসের দীপা দাসমুন্সিকে হারিয়েছিলেন সিপিএমের মহম্মদ সেলিম। এ বার সেলিম, দীপা তো লড়ছেনই, তার সঙ্গে তৃণমূল, বিজেপি-ও লড়ছেন সমস্ত শক্তি দিয়ে। এই কেন্দ্রে ৫১ শতাংশ সংখ্যালঘু ভোট। পর্যবেক্ষকদের মতে, সেই ভোটকে নিজেদের দিকে টানতেই ফিরদৌসকে এনেছিল শাসকদল।

অতীতে দেখা গিয়েছে ভিন রাজ্যের অভিনেতা, অভিনেত্রীদের বাংলায় প্রচারে আসতে। খেলোয়াড়দেরও দেখা যেত ভোট প্রচারে সামিল হতে। কিন্তু ‘বিদেশি’ অভিনেতাকে ভোটপ্রচারে আনা, এ বোধহয় আগে কখনও দেখা যায়নি। তৃণমূলের তরফে যদিও এ নিয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি। দলের তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেলে তা এই প্রতিবেদনে আপডেট করা হবে। এখন দেখার কমিশন অভিযোগ পাওয়ার পর কী পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

Shares

Comments are closed.