বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২১
TheWall
TheWall

বিজেপির দেওয়া ‘চেক বাউন্স’! ক্ষতিপূরণের টাকা তুলতে পারলেন না নানুরের সেই নিহতের স্ত্রী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রাজনৈতিক সংঘর্ষে নিহত দলীয় কর্মীদের পরিবারের পাশে দাঁড়াতে আর্থিক সাহায্যের উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্য বিজেপি। প্রতিটি পরিবারকে দেওয়া হচ্ছে পাঁচ লক্ষ টাকার চেক। কিন্তু নানুরে সংঘর্ষে নিহত বিজেপি কর্মী স্বরূপ গড়াইয়ের স্ত্রী চায়না গড়াইয়ের অভিযোগ, তিনি চেক ভাঙানোর জন্য জমা দিয়েছিলেন ব্যাঙ্কে। কিন্তু সেই চেক বাউন্স করেছে!

মনে পড়ে সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে নানুরে রাজনৈতিক হিংসার কথা? তৃণমূল-বিজেপির সংঘর্ষে গুলিবৃষ্টি হয়েছিল নানুরের গ্রামে। দু’দিন পর গুলিবিদ্ধ বিজেপি কর্মী স্বরূপ গড়াইয়ের মৃত্যু হয় কলকাতার নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। বিজেপি নেতৃত্ব ও নিহতের পরিবার এও অভিযোগ করেছিল, পুলিশ রাজনৈতিক উদ্দেশে স্বরূপ গড়াইয়ের লাশ মর্গের পিছন দরজা দিয়ে কলকাতা থেকে বীরভূমে পাঠিয়ে দিয়েছে।

গেরুয়া শিবিরের দাবি ছিল, এনআরএসের উঠোনেই পরিবারের হাতে দেহ তুলে দিতে হবে পুলিশ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। তা নিয়ে মামলা গড়ায় হাইকোর্ট পর্যন্ত। আদালত নির্দেশ দেয়, পরিবারের হাতেই লাশ দিতে হবে। এসবের পর লাশ নিয়ে নানুরের গ্রামে পৌঁছেও অশান্তি থামেনি। ইচ্ছাকৃত প্রশাসনিক জটিলতা তৈরির অভিযোগ তুলে সিউড়ি সদর হাসপাতালের সামনে লাশ নিয়ে চলে বিক্ষোভ। তারপর অবশ্য শেষকৃত্য সম্পন্ন হয় বছর ৪২-এর স্বরূপের। এক সপ্তাহের মধ্যে জেলা বিজেপি নেতারা নিহত কর্মীর বাড়িতে গিয়ে ক্ষতিপূরণের পাঁচ লক্ষ টাকার চেক তুলে দেন। কিন্তু এদিন নিহতের স্ত্রী জানালেন, ওই চেক বাউন্স করেছে।

এর মাঝে ঘটে গিয়েছে আরও একটি ঘটনা। আর সেটাকেই চেক বাউন্সের নেপথ্য কাহিনি বলছেন অনেকে। গত ২৮ সেপ্টেম্বর স্বরূপের স্ত্রী চলে যান তৃণমূলের পার্টি অফিসে। জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডলের সামনে দাঁড়িয়ে চায়না দাবি করেন, তাঁর স্বামীকে বিজেপির লোকজনই খুন করেছে। তাই তিনি তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন। চেক বাউন্সের ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে কোনও রাগঢাক রাখেননি বিজেপির জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল। তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন, “স্বরূপের স্ত্রী বিজেপি থেকে তৃণমূলে গিয়েছেন। তাই আমরা টাকাটা সরিয়ে নিয়েছি।”

এ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে অনুব্রতবাবু বলেন, “এটাই হল বিজেপির সংস্কৃতি। ওদিকে মোদী সরকার সবার টাকা ব্যাঙ্ক থেকে লুঠ করে নিচ্ছে। আর এদিকে ক্ষতিপূরণের নামে দেওয়া চেক বাউন্স করছে! এটাই ওঁদের আসল চরিত্র। আস্তে আস্তে সবাই বুঝতে পারছে।” গোটা ঘটনায় বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন স্বরূপের স্ত্রী। তাঁর কথায়, “প্রতারণা করা হল আমাদের পরিবারের সঙ্গে। এর সাজা ওদের পেতেই হবে।”

Comments are closed.