শুক্রবার, নভেম্বর ১৫

রাজনীতির ঝান্ডা ধরুন, অভিজিতের বিরুদ্ধে ফের বিস্ফোরক মন্তব্য রাহুলের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আগে বলেছিলেন দ্বিতীয় স্ত্রী বিদেশি হওয়ায় নোবেল পেয়েছেন বাঙালি অর্থনীতিবীদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই মন্তব্যের জেরে শুরু হয়েছে সমালোচনা। তা নিয়ে অনুতপ্ত তো নন ফের একবার নোবেলজয়ীকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা। বললেন, অর্থনীতি ছেড়ে রাজনীতির ঝান্ডা ধরুন অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়।

দেশে ফিরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করতে পারেন নোবেলজয়ী অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই প্রসঙ্গে রবিবার সাংবাদিকদের সামনে রাহুল সিনহা বলেন, “উনি মোদীর সঙ্গে দেখা করতেই পারেন। কিন্তু আমার বক্তব্য যিনি নোবেলজয়ী তাঁর কখনওই রাজনীতি করা উচিত নয়। অর্থনীতিবীদরা সবসময় অর্থনীতির চিন্তা করেন। কিন্তু অভিজিৎবাবু অর্থনীতি বাদ দিয়ে রাজনীতি করছেন।”

অভিজিৎবাবু নোবেল পাওয়ায় তিনি গর্বিত হয়েছেন বলেই জানিয়েছেন রাহুল সিনহা। বিজেপি নেতা বলেন, “অভিজিৎবাবু নোবেল পাওয়ায় গর্ব হচ্ছে। কিন্তু উনি যেভাবে একটি চিন্তাকে বাস্তবায়িত করার জন্য অন্যকে কটাক্ষ করছেন, অপমান করছেন সেটা ঠিক নয়। উনি প্রধানমন্ত্রীকেও ছাড়ছেন না। উনি কংগ্রেসের হয়ে ন্যায়-এর জন্য কাজ করেছেন। তার বদলে উনি যদি দেশের কল্যাণের জন্য কাজ করতেন তাহলে ভালো হত।”

অভিজিৎবাবুর চিন্তাকে সাধারণ মানুষ গ্রহণ করেননি এমনটাই দাবি করেছেন রাহুল সিনহা। সেই সঙ্গে নাম না করে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবীদ অমর্ত্য সেনকেও কটাক্ষ করেছেন তিনি। রাহুলবাবু বলেন, “দেশের মানুষ তাঁর চিন্তাকে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছেন। তাঁর চিন্তার যে কোনও মূল্য নেই তা প্রমাণ হয়ে গিয়েছে। এর আগেও আমরা নোবেলজয়ী অর্থনীতিবীদ ( পড়ুন অমর্ত্য সেন )-এর ক্ষেত্রে একই জিনিস দেখেছি। অভিজিৎবাবুর উচিত অর্থনীতি ছেড়ে রাজনীতির ঝান্ডা নিয়ে নেমে পড়া।”

এর আগে শুক্রবার এই বিজেপি নেতা মন্তব্য করেছিলেন, “যাঁর দেখছি দ্বিতীয় স্ত্রী বিদেশি, তিনিই নোবেল পেয়ে যাচ্ছেন। আমি জানি না এটা নোবেল পাওয়ার জন্য বিশেষ কোনও ডিগ্রি কিনা।” তাঁর সেই মন্তব্য যে তিনি প্রত্যাহার করবেন না বা তার জন্য ক্ষমা চাইবেন না তা এ দিন স্পষ্ট জানিয়ে দেন রাহুল সিনহা। তিনি বলেন, “আমার মন্তব্য ফিরিয়ে নেব না। যেটা ঘটনা সেটাই বলেছি।”

পড়ুন, দ্য ওয়ালের পুজোসংখ্যার বিশেষ লেখা…..

Comments are closed.