সোমবার, মে ২৭

আসানসোলে মুনমুন, বাবুল বললেন ‘মমতার সেন-সেশনাল উপহার’

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তাঁর বুদ্ধিদীপ্ততার কথা রাজনৈতিক মহলে বহুল চর্চিত। মাঝেমাঝেই রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে আক্রমণ করতে রসিকতাকেই অস্ত্র করেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। মঙ্গলবার তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হওয়ার পরও সেই ধারা বজায় রাখলেন গায়ক সাংসদ।

এ দিন দুপুরে কালীঘাটের বাড়িতে সাংবাদিক সম্মেলন করে দলের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাতে দেখা গিয়েছে, বাবুলের বিরুদ্ধে মমতা প্রার্থী করেছেন অভিনেত্রী মুনমুন সেনকে। আর এটাকেই উপহার হিসেবে দেখছেন বাবুল। টুইট করে বাবুল লিখেছেন, “আসানসোলের ভোটে মমতাজি আমাকে সব সময় সেন-সেশনাল প্রতিপক্ষই উপহার দেন।”

গতবার বাবুলের বিরুদ্ধে তৃণমূল প্রার্থী করেছিল দোলা সেনকে। আর এ বার মুনমুন সেন। সেটাকেই সেন-সেশনাল বলেছেন বাবুল। মুনমুন সেন গতবার বাঁকুড়া থেকে জিতেছিলেন। কিন্তু বাঁকুড়ার তৃণমূল জেলা নেতৃত্ব তাঁকে নিয়ে একেবারেই সন্তুষ্ট ছিলেন না। মুনমুনকে যে আর বাঁকুড়ায় দিদি দাঁড় করাবেন না, তা অনেক দিন আগেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু তাঁকে যে আসানসোলে পাঠানো হবে এ কথা বোধহয় তৃণমূলের উপরের সারির অনেক নেতাই আন্দাজ করতে পারেননি। মুনমুন সেনকে প্রতিপক্ষ পেয়ে বাবুল যেন অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী।

পর্যবেক্ষকদের মতে, অন্য জগৎ থেকে রাজনীতিতে আসা চরিত্ররা যেমন হন বাবুল ঠিক তেমন নন। বাবুল যে রাজনৈতিকভাবে অনেকটাই পরিপক্ক তার নিদর্শন গত পাঁচ বছরে বহুবার রেখেছেন। কয়েক মাস আগেই তো, যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে বলেছিলেন, “মমতাদি বা শুভেন্দু কিছু বললে বুঝতাম। কারণ ওঁরা সিপিএমের বিরুদ্ধে লড়াই করে উঠেছেন। ভাইপোর তো কোনও যোগ্যতাই নেই।”

পর্যবেক্ষকদের মতে, আসানসোলে আর কাউকে প্রার্থী খুঁজে না পেয়ে বাধ্য হয়েই মুনমুন সেনকে দাঁড় করিয়েছে তৃণমূল। দলের ভিতরকার কাজিয়ার জন্যই সেখানে স্থানীয় নেতাদের দাঁড় করাননি দিদি। আর এতেই বদলে গিয়েছে বাবুলের শরীরী ভাষা। যেন দ্বিতীয়বারের জন্য দিল্লি যাওয়া প্রায় পাকা করে ফেলেছেন নরেন্দ্র মোদীর স্নেহধন্য এই সাংসদ।

আরও পড়ুন-

উনিশের ভোটেও টলিউড তাস মমতার, পুরনো তিন, নতুন দুই

Shares

Comments are closed.