সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৩

সদ্যোজাত যমজের মৃত্যু, ফের সুস্থ সন্তানের আশায় নরবলির চেষ্টা! উত্তেজনা বসিরহাটে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জন্মের পরেই মারা গিয়েছিল নাতবউয়ের যমজ সন্তান। শোকে পাথর হয়ে গিয়েছিল পরিবার। কিন্তু সে সময়েই স্থানীয় তান্ত্রিকের দ্বারস্থ হয় ওই পরিবারের এক মহিলা। মানুষগুলোর দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে তান্ত্রিক জানায় তিনটি প্রাণের বিনিময়েই ফের জন্মাবে সবল-সুস্থ সন্তান। তান্ত্রিকের বিধান বাস্তবায়িত করতে ময়দানে নামেন ওই মহিলা। পাড়ার বাচ্চাদের তান্ত্রিকের দেওয়া ওষুধ খাওয়াতে শুরু করেন। পুলিশ জানিয়েছে, ইতিমধ্যেই তিন বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় কলকাতার হাসপাতালে ভর্তি করা হয় উচ্চমাধ্যমিকের এক ছাত্রীকে। 

এই ঘটনা ঘটেছে বসিরহাটের স্বরূপনগরে। পুলিশ জানিয়েছে, মূল অভিযুক্তের নাম আল্পনা ঘোষ। অভিযোগ, তাঁর নাতবউয়ের যমজ সন্তানের মৃত্যুর পর থেকেই তান্ত্রিকের কথা মতো পাড়ার ছোটছোট ছেলেমেয়েদের বিশেষ ওষুধ খাওয়াচ্ছিলেন তিনি। প্রতিবেশীদের অভিযোগ, এই ওষুধের জেরেই মারা গিয়েছে একটি বাচ্চা। রক্তবমি শুরু হওয়ায় আর এক জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে সে জানায় মোটা হয়ে যাওয়ার জন্য মেদ কমাতে আল্পনা জোর করে তাকে ওষুধ খাইয়েছিলেন। 

এরপর ঘটনা জানাজানি হতেই আজ সকালে আল্পনার বাড়িতে চড়াও হয় ক্ষুব্ধ জনতা। বাড়ি ভাঙচুর করে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় বলে খবর। পুলিশের উপরেও চড়াও হয় উন্মত্ত জনতা। সূত্রের খবর, পুলিশের গাড়িতেও আগুন ধরিয়ে দেয় উত্তেজিত জনতা। তাদের ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিচার্জ করে পুলিশ। কোনওমতে জনতার রোষ থেকে তিনজনকে উদ্ধার করে পুলিশ। যদিও মূল অভিযুক্ত আল্পনা ঘোষ এখনও পলাতক। এই ঘটনায় তদন্তে নেমেছে পুলিশ। এখনও কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। পলাতক আল্পনা এবং ওই তান্ত্রিকের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।

Comments are closed.