বুধবার, মে ২২

বিজেপি-তে যাব কেন? গাঁজাখুরি গল্প শোনাচ্ছে তৃণমূল: অধীর

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘বিজেপি-র পথে অধীররঞ্জন চৌধুরী।’ শনিবার দিনভর সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরেছে এই পোস্ট। তাতে আরও অক্সিজেন দেয় বহরমপুরের সাংসদ তথা প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতিকে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের ফোন। কিন্তু রবিবার সকালে বহরমপুরে জেলা কংগ্রেস কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠক করে অধীরবাবু জানিয়ে দিলেন, তাঁর বিজেপি-তে যোগ দেওয়ার কথা একটা ‘গাঁজাখুরি গল্প।’

এ দিন সাংবাদিক বৈঠকে অধীরবাবু বলেন, “তৃণমূলের পক্ষ থেকে এই গুজব ছড়ানো হচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরাসরি রাজনৈতিক লড়াইয়ে ভয় পাচ্ছেন বলেই এ সব করাচ্ছেন দলীয়কর্মীদের দিয়ে।” তাঁর ব্যাখ্যা, মুর্শিদাবাদ সংখ্যালঘু অধ্যুষিত জেলা। তাই মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষের মনে যদি অধীর-বিজেপি যোগ নিয়ে প্রশ্ন তুলে দেওয়া যায়, তাহলে তৃণমূলের সুবিধে হবে। সেই কারণেই বাংলার শাসকদল এই কাজ করছে বলে এ দিন বলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী।

গতকাল রাতেই মুকুল রায় ফোন করেছিলেন অধীরবাবুকে। জানিয়েছিলেন তিনি দিল্লি যাচ্ছেন। সেখানে দেখা হতে পারে। এই ফোন যে রাজনৈতিক ভাবে কতটা তাৎপর্যপূর্ণ তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তার মধ্যে যখন বাংলায় এ দল, সে দল ভাঙার খেলা পুরোদস্তুর শুরু হয়ে গিয়েছে। কিন্তু মুর্শিদাবাদের ‘রবিনহুড’ এ দিন পষ্টাপষ্টি বলেন, “আমি যদি বিজেপি করি তাহলে মুকুল রায়ের সঙ্গে কেন দেখা করব? ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করব। বা বিজেপি-র সভাপতি অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করব। মুকুল রায়ের সঙ্গে কেন দেখা করতে যাব? আমি চার বারের সাংসদ। আমার একটা জাত আছে।”

প্রসঙ্গত, অধীর চৌধুরী বিজেপি-তে যেতে পারেন এ কথা গত কয়েক মাসে একাধিকবার শোনা গিয়েছে। তৃণমূলের তরফে মুর্শিদাবাদের পর্যবেক্ষক তথা রাজ্যের পরিবহণ ও পরিবেশমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী গত কয়েক মাসে মুর্শিদাবাদ জেলায় যত সভা করেছেন, প্রায় প্রতিটা সভাতেই নিয়ম করে বলেছেন, “অধীর চৌধুরী বিজেপি-র দিকে পা বাড়িয়ে রেখেছে।” উদাহরণ দিতে গিয়ে নন্দীগ্রামের বিধায়ক উল্লেখ করেছেন, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী তথা হিন্দুত্বের পোস্টারবয় যোগী আদিত্যনাথের লখনউয়ের বাংলোয় গিয়ে অধীরের মধ্যাহ্নভোজের কথা। তার মধ্যেই দুর্গাপুজোর দশমীর দিন লোকসভার অধ্যক্ষ তথা বিজেপি নেত্রী সুমিত্রা মহাজনের সঙ্গে দিল্লির একটি পুজো মণ্ডপে ধুনুচি নিয়ে নাচতে দেখা যায় অধীর চৌধুরীকে। কিন্তু অধীর এ দিন স্পষ্ট করে দিলেন, গেরুয়া শিবিরে যাওয়ার কোনও সম্ভাবনাই নেই তাঁর।

Shares

Comments are closed.