রবিবার, সেপ্টেম্বর ২২

অঙ্কে কেমন কোহলি, বিরাট ব্যর্থতার কথা নিজেই জানালেন প্রথমবার

  • 21
  •  
  •  
    21
    Shares

দ্য ওয়াল ব্যুরো: প্রতিপক্ষ বোলারদের নিয়ে ক্যালকুলেশন করতে একচুলও ভুল হয় না তাঁর। রান তাড়া করতে নেমে ঠাণ্ডা মাথায় হিসেব করে এগোন তিনি। স্ত্রী নির্বাচনের ক্ষেত্রে বা জীবনের অন্যান্য ক্ষেত্রেও তাঁর ক্যালকুলেশন নিখুঁত। কিন্তু এ হেন বিরাট কোহলিই কিনা স্কুলজীবনে বেজায় ভয় পেতেন অঙ্কে। ফরমুলা ঢুকত না তাঁর মাথায়। ক্লাস টেনের পরীক্ষায় কোনও ভাবে পাশ করেছিলেন ভারতের ক্রিকেট অধিনায়ক।

সম্প্রতি একটি খেলা বিষয়ক অনুষ্ঠানে গিয়ে বিরাট কোহলি বলেন, “অঙ্কের ক্ষেত্রে সবথেকে বেশি সমস্যা হতো পরীক্ষার সময়। ১০০-তে বেশিরভাগ সময়েই আমি ৩ পেতাম। অঙ্কে আমি ততটাই ভালো ছিলাম। আমি কিছুই বুঝতে পারতাম না, যেন লোকে অঙ্ক শিখতে যায়। ক্লাস টেনের পরীক্ষাতেও কোনও রকমে পাশ করেছিলাম আমি।”

অবশ্য অঙ্কের ফরমুলা যে ব্যক্তিগত জীবনে কখনওই ফলো করেননি বিরাট, তাও জানিয়ে দেন স্পষ্ট। তিনি বলেন, “অঙ্কের ভিতরের কঠিন ফরমুলা আমি বুঝতে পারি না। আমি ব্যক্তিগত জীবনে কখনওই তা ফলো করিনি।”

ক্লাস টেনের পরীক্ষা দেওয়ার পরই যে কোহলি নিশ্চিন্ত হতে পেরেছিলেন, সেটাও জানান তিনি। বলেন, “আমি খালি চাইতাম কোনও রকমে ক্লাস টেনের পরীক্ষা পাশ করা। কারণ এই পরীক্ষার পরেই কেউ চাইলে অঙ্ক নিয়ে আর নাও পড়তে পারে। আমি সবাইকে বলছি, ক্লাস টেনের অঙ্ক পরীক্ষা পাশ করার জন্য যে পরিশ্রম আমি করেছিলাম, তা কোনও দিন ক্রিকেটের জন্যও করিনি।”

অবশ্য সফল ক্রিকেটারদের পড়াশোনা কম করা বা পড়াশোনাতে খারাপ থাকার ঘটনা নতুন নয়। মাস্টার ব্লাস্টার শচীন তেণ্ডুলকরও পড়াশোনার থেকে খেলাধুলোতেই বেশি আগ্রহী ছিলেন। এমনকী রোহিত শর্মা, শিখর ধাওয়ানরাও বিভিন্ন ইন্টারভিউতে বলেছেন, স্কুল জীবনে খুবই খারাপ ছাত্র ছিলেন তাঁরা। অবশ্য এর বিপরীত ছবিও রয়েছে। বিশেষ করে দক্ষিণ ভারত থেকে উঠে আসা ক্রিকেটারদের মধ্যে। অনিল কুম্বলে, জভগল শ্রীনাথ, ভিভিএস লক্ষ্মণ বা রবিচন্দ্রন অশ্বিনরা ভালো ক্রিকেটার হওয়ার পাশাপাশি যথেষ্ট শিক্ষিতও বটে।

Comments are closed.