সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৩

মিশন বিশ্বকাপ, রওনা হয়ে গেল বিরাট অ্যান্ড কোং

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আর ঠিক আট দিন পরেই শুরু হয়ে যাচ্ছে ক্রিকেটের মেগা ইভেন্ট বিশ্বকাপ। তার আগে বুধবারই ইংল্যান্ডের উদ্দেশে রওনা হয়ে গেল ভারতীয় দল। বুধবার মুম্বই বিমানবন্দর থেকে একসঙ্গে উড়ে গেলেন কোহলিরা। প্রত্যেকের পরনে ছিল সাদা শার্ট, কালো ট্রাউজার ও কালো ব্লেজার। বিমান ধরার আগে বিমানবন্দরেই বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হয় পুরো দলকে। ক্রিকেটারদের শরীরী ভাষায় আত্মবিশ্বাস ঠিকরে পড়ছিল।

বুধবার মুম্বই বিমানবন্দর থেকে রওনা হয়ে যান, বিরাট কোহলির নেতৃত্বে ১৫ জনের দল। সঙ্গে ছিলেন কোচ রবি শাস্ত্রী ও অন্যান্য সাপোর্ট স্টাফরা। বিমানবন্দরে দেখা যায়, কেউ ভিডিয়ো গেম খেলে সময় কাটাচ্ছেন, কেউ বা সতীর্থের সঙ্গে গল্পে মশগুল। আবার দেদার ছবি তুলতেও দেখা যায় সবাইকে। সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন অনেকে। বিসিসিআই-এর তরফেও ক্রিকেটারদের ছবি পোস্ট করা হয় টুইটারে। তলায় লেখা, “জেট সেট টু গো।”

দুই যাদব, কেদার ও কুলদীপের সঙ্গে ছবি তুলে তা টুইটারে শেয়ার করেন বিরাটের ডেপুটি রোহিত শর্মা। আইপিএল চলাকালীন ডান দিকের ঘাড়ে চোট পেয়েছিলেন কেদার। শেষ কয়েকটি ম্যাচে খেলতে পারেননি তিনি। বিশ্বকাপের আগে কুলদীপ সুস্থ হয়ে যাবেন কিনা, তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছিল। কিন্তু জানা গিয়েছে, পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠেছেন ভারতের এই অলরাউন্ডার।

ছবি তুলে টুইটারে শেয়ার করেন লোকেশ রাহুল, শিখর ধাওয়ান, জশপ্রীত বুমরাহ ও কুলদীপ যাদব। ভারতের বিশ্বকাপ জয়ের ক্ষেত্রে অন্যতম ভরসা এই বুমরাহ। কারণ সামারের শেষ দিকে ইংল্যান্ডের উইকেট অনেক পাটা হয়ে যায়। ফলে বোলারদের পক্ষে বিশেষ কিছু করার থাকে না। সদ্যসমাপ্ত পাকিস্তান ও ইংল্যান্ডের মধ্যে সিরিজে সেটাই দেখা গেছে। আর তাই ভারতের বোলিং ইউনিটের উপর অনেক কিছু নির্ভর করছে।

একসঙ্গে ছবি তোলেন ভারতের ওপেনিং জুটি ধাওয়ান-রোহিত ও স্পিন জুটি কুলদীপ-চাহাল। একদিকে যেমন ভারতকে ভালো স্টার্ট দেওয়ার জন্য ধাওয়ান ও রোহিতের ভালো পার্টনারশিপের দরকার, তেমনই মাঝের ওভারে উইকেট পাওয়ার জন্য দুই স্পিনার কুলদীপ ও চাহালের পার্টনারশিপের খুব দরকার। তাই বিশ্বকাপে এই চারজনের পারফরম্যান্সও খুব গুরুত্বপুর্ণ হতে চলেছে।

ইংল্যান্ড রওনা দেওয়ার আগে মঙ্গলবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন বিরাট। অধিনায়ক বলেন, “বিশ্বকাপ খেলতে দলের সবাই মুখিয়ে আছে। এ বারের বিশ্বকাপ সবথেকে কঠিন হতে চলেছে। কারণ এ বারের ফরম্যাটটাই সেরকম। কিন্তু আমাদের নিজেদের উপর বিশ্বাস আছে। আমরা যদি নিজেদের সবটা দিয়ে খেলি, তাহলে বিশ্বকাপ আমরা জিতব বলেই মনে করি।” ভারতের কোচ রবি শাস্ত্রীও বলেন, “আমি ছেলেদের বলেছি, ওখানে গিয়ে খেলাটা এনজয় করতে। কারণ চাপ থাকলে বিশ্বকাপে অনেক সময় সহজ ম্যাচও কঠিন হয়ে যায়। আমাদের ছেলেরা যদি নিজেদের ফোকাস ঠিক রাখে তাহলে বিশ্বকাপ ভারতেই আসছে।”

৩০ মে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ। ভারতের প্রথম খেলা ৫ জুন দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে।

Comments are closed.