রবিবার, নভেম্বর ১৭

গ্যালারি তৈরি ছিল, পারলাম না আমরা, ক্ষমা চাইলেন সুনীল

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ৬১ হাজার ৪৮৬। গতকাল সন্ধেবেলা যুবভারতীতে সুনীলদের হয়ে গলা ফাটাতে উপস্থিত ছিলেন এত সংখ্যক সমর্থক। কিন্তু তাঁদের মন ভরাতে পারল না ভারত। বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ারে শেষ মুহূর্তে আদিল খানের গোলে কোনও রকমে বাংলাদেশের সঙ্গে ড্র করল ইগর স্টিম্যাচের ছেলেরা। কিন্তু তারপরেও গ্যালারির চিৎকার কমেনি। থামেনি সুনীলদের জন্য হাততালি। আর তাই ম্যাচের পর যুবভারতীর দর্শকদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিলেন ভারতীয় ফুটবলের পোস্টার বয় সুনীল ছেত্রী।

বুধবার সকালে টুইটে সুনীল লেখেন, “গত রাতে যুবভারতীর পরিবেশের মতো খেলা আমরা খেলতে পারিনি। এই জন্য ড্রেসিং রুমের সবার মন খারাপ। আমরা যে সুযোগ পেয়েছিলাম তা কাজে লাগাতে পারিনি। কিন্তু এটা একটা প্রক্রিয়া। আপনারা এভাবেই মাঠে আসুন। আমরা নিজেদের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করব।”

গত কয়েক বছরে ভারতীয় ফুটবলের গ্রাফ উপরের দিকে উঠেছে। তার সিংহভাগ কৃতিত্ব প্রাপ্য সুনীলের। ভারতের হয়ে ১১২ ম্যাচে ৭২ গোল করেছেন তিনি। তাঁর পায়েই স্বপ্ন দেখেছে ভারত। এই বয়সেও একার কাঁধে দলকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। সুনীল মাঠে না থাকা মানে খেলার আগেই অনেকটা পিছিয়ে থাকে ভারত।

কিন্তু বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ারে কাতারের মতো শক্তিশালী দলের বিরুদ্ধে সুনীলকে ছাড়াই ড্র করেছিল ভারত। সাহস পেয়েছিলেন সুনীলও। বলেছিলেন, আমাকে ছাড়াও সফল এই দল। আমিও অন্যদের মতোই এই দলের অংশ। কিন্তু কাতার ম্যাচের ছিটেফোঁটাও দেখা গেল না মঙ্গলবার ভারতের খেলার মধ্যে। কাতারের বিরুদ্ধে নায়ক হয়েছিলেন গোলকিপার গুরপ্রীত সিং সান্ধু। সেই গুরপ্রীতের ভুলেই গোল হজম করতে হয়েছে ভারতকে। কোনও রকমে ড্র করে মান বেঁচেছে।

কয়েক মাস আগে মুম্বইয়ে একটি ফ্রেন্ডলি ম্যাচের আগে টুইট করে ফুটবল সমর্থকদের মাঠ ভরানোর আবেদন করেছিলেন সুনীল। কলকাতায় কিন্তু সে সব করতে হয়নি। টিকিট ছাড়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই যুবভারতী হাউসফুল। সবাই ভারতীয় দলের জার্সি পরে গালে ভারতের পতাকা এঁকে মাঠে এসেছিলেন। ৯০ মিনিট দলকে সমর্থন করেছে যুবভারতী। ম্যাচ শেষেও হাততালি এসেছে সুনীলদের জন্য। আর তাই হয়তো ম্যাচের পরে সুনীল টুইট করে ক্ষমা চাইলেন ভারতীয় ফুটবলের মক্কার কাছে।

পড়ুন, দ্য ওয়ালের পুজোসংখ্যার বিশেষ লেখা…

Comments are closed.