মঙ্গলবার, নভেম্বর ১২

ভাজ্জি কি এ বার ক্রিকেট প্রশাসনে, হরভজনের টুইটের জবাবে ইঙ্গিত সৌরভের

দ্য ওয়াল ব্যুরো : তিনি বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর থেকে শুভেচ্ছার বন্যায় ভেসে গিয়েছে ইন্টারনেট। একদা তাঁর সতীর্থ শচীন তেণ্ডুলকর, ভিভিএস লক্ষ্মণ, বীরেন্দ্র সেহওয়াগ, মহম্মদ কাইফের মতো ক্রিকেটাররা শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে। বুধবার টুইট করেন হরভজন সিংও। ভাজ্জির টুইটের জবাব দিয়েছেন দাদা। আর এই জবাবই দিচ্ছে এক অন্য ইঙ্গিত। তাহলে কি সৌরভের হাত ধরে প্রশাসনে এ বার দেখা যাবে এই চ্যাম্পিয়ন স্পিনারকেও।

বুধবার টুইটে তাঁর ও সৌরভের একটি ছবি দিয়ে হরভজন লেখেন, “তুমি এমন লিডার যে অন্যদের লিডার হয়ে ওঠার ক্ষমতা দেয়। বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট পদের জন্য অভিনন্দন। এগিয়ে চলার জন্য শুভেচ্ছা রইল।” এর উত্তরে সৌরভ টুইট করেন, “ধন্যবাদ ভাজ্জু। বোলার হিসেবে একপ্রান্ত থেকে টানা বল করে যেভাবে দেশকে জয় এনে দিতে, সেই দিনগুলোর মতোই তোমার সাহায্য চাই।” সৌরভের এই জবাবের পরেই শুরু হয়েছে জল্পনা।

হরভজনের ক্রিকেট কেরিয়ার শুরু সৌরভের অধিনায়কত্বেই। ২০০১ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে ভেঙ্কটপতি রাজুকে বসিয়ে তরুণ হরভজনকে সুযোগ দিয়েছিলেন সৌরভ। ৩ টেস্ট ৩১ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। তার মধ্যে ছিল ইডেনে ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ে হ্যাটট্রিক। সেই শুরু। তারপর যতদিন সৌরভ অধিনায়ক ছিলেন হরভজন ছিলেন তাঁর তুরুপের তাস। নির্দ্বিধায় বল তুলে দিতেন। দায়িত্ব পালন করতেন ভাজ্জি। এ বারও কি দায়িত্ব চাপবে হরভজনের উপর।

প্রেসিডেন্ট হওয়ার পরেই সৌরভ বলেছিলেন তাঁর প্রথম কাজ হবে বোর্ডের মধ্যে স্বচ্ছতা আনা। তার মানে তিনি বুঝিয়ে দিয়েছেন বিসিসিআই-এর অন্দরমহলে কোনও সমস্যা রয়েছে। হালফিলে বারবার আঙুল উঠেছে নির্বাচক কমিটির উপর। এমএসকে প্রসাদের নেতৃত্বাধীন এই কমিটির যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। কিন্তু আর বেশিদিন নেই এই কমিটির। নতুন কমিটি তৈরি হবে। তাহলে কি এ বার সেই কমিটিতে দেখা যাবে হরভজনকে। দাদার করা টুইট কিন্তু অনেক জল্পনার জন্ম দিয়ে গেল।

পড়ুন, দ্য ওয়ালের পুজোসংখ্যার বিশেষ লেখা…

Comments are closed.