রবিবার, সেপ্টেম্বর ২২

একমনে করছেন জুতো পালিশ, ধোনির সরলতায় মুগ্ধ নেট দুনিয়া

দ্য ওয়াল ব্যুরো : একদিন আগেই আর্মি ক্যাম্পে সেনাবাহিনীর জওয়ানদের সঙ্গে মহেন্দ্র সিং ধোনির ভলিবল খেলার ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছিল। এ বার আরেক ভূমিকায় দেখা গেল ধোনিকে। সম্প্রতি একটি ছবি বেরিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেখানে দেখা যাচ্ছে এক মনে নিজের জুতো পালিশ করছেন ধোনি। আর এই ছবিই ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সম্প্রতি ধোনি ফ্যান ফ্লাবের প্রকাশ করা ছবিতে দেখা যাচ্ছে, আর্মি পোশাক পরে ক্যাম্পের মধ্যে বসে নিজের জুতো পালিশ করছেন ধোনি। এই ছবি শেয়ার করে লেখা হয়, “ধোনি নিজের সরলতা ও ভদ্রতা দিয়ে আমাদের মন জয় করে নিয়েছেন। বাড়তি কোনও ব্যবস্থা নেই। বাড়তি কোনও সুরক্ষা নেই। কারণ উনি অন্য জওয়ানদের মতোই দেশের কাজ করতে গিয়েছেন।”

ধোনির এই ছবি বেরনোর পরেই আসতে থাকে ধোনি ভক্তদের প্রশংসা। কেউ বলেন, ‘এটাই মাহি। সবাই ওনার সরলতার জন্যই ওনাকে ভালোবাসে।’ কেউ আবার লিখেছেন, ‘ভারতীয় হিসেবে গর্বিত। আপনার মতো আরও অ্যাথলিট আমাদের চাই মাহি।’ আবার অনেকে লিখেছেন, ‘সত্যি ধোনিকে দেখে তরুণ প্রজন্মের অনেকেই আর্মির দিকে আকৃষ্ট হবে। একজন রোল মডেল হিসেবে এটাই তো করা উচিত।’ আবার একজন লিখেছেন, ‘আপনি লেজেন্ড। তারপরেও আপনার পা মাটিতে থাকে সবসময়। সব অধিনায়কদের ধোনির কাছ থেকে শেখা উচিত।’

বিশ্বকাপের পরেই ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি জানিয়েছিলেন, কয়েকদিন সেনাবাহিনীর সঙ্গে কাটাতে চান তিনি। তাঁর আবেদনে সারাও দেয় সেনা। অফিসিয়ালি ৩১ জুলাই সেনার সঙ্গে যোগ দেন ধোনি। থাকবেন ১৫ অগস্ট পর্যন্ত। এই সময়ে কাশ্মীরে পোস্টিং দেওয়া হয় ধোনিকে। প্যারামিলিটারির ১০৬ নম্বর ব্যাটেলিয়নে যোগ দেন লেফটেন্যান্ট কর্নেল ( সাম্মানিক ) মহেন্দ্র সিং ধোনি। সেনার তরফে জানানো হয়, এই ব্যাটেলিয়নকে বলা হয় ভিক্টর ফোর্স। সেখানে পেট্রোলিং, গার্ড ও পোস্ট ডিউটি সামলাতে হচ্ছে ধোনিকে। অন্য সব জওয়ানদের মতোই সব কাজ করতে হচ্ছে তাঁকে।

ভারতীয় সেনার প্যারাশ্যুট রেজিমেন্টের সাম্মানিক কর্নেল ধোনি। ২০১১ সালে সেনার তরফে তাঁকে এই সম্মান দেওয়া হয়। তিনি ছাড়াও এই সম্মান পেয়েছেন অলিম্পিকসে সোনাজয়ী অভিনব বিন্দ্রা ও দীপক রাও। তবে ধোনির মতো এত বেশি সময় সেনার সঙ্গে তাঁকে কাটান না। এই সম্মান পাওয়ার পর ২০১৫ সালে আগ্রাতে প্যারামিলিটারির ট্রেনিং ক্যাম্পে ৫টি প্যারাশ্যুট ট্রেনিং জাম্পও পূর্ণ করেছেন তিনি।

Comments are closed.