ধোনি বাদ চুক্তিতে, পিছনে কি মহারাজ

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বিষ্যুদবার বারবেলায় বোমার মতো খবরটা এসে পড়ল ভারতীয় ক্রিকেট সমর্থকদের মাথায়। বিসিসিআইয়ের নতুন বার্ষিক চুক্তি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে ভারতের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিকে। যেখানে গত বছরও বোর্ডের এ গ্রেডে ছিলেন ধোনি, সেখানে এবছরে চুক্তি থেকেই বাদ তিনি। হঠাৎ কী হল, যে এই সিদ্ধান্ত নিতে হল বোর্ড ম্যানেজমেন্টকে। এর পিছনে কে? নতুন বোর্ড সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের কি হাত রয়েছে এর পিছনে? উঠছে অনেক প্রশ্ন।

এই আলোচনা করতে গেলে অবশ্য পিছিয়ে যেতে হবে ১২ বছর আগে। ২০০৭ সালে টি ২০ বিশ্বকাপ জেতার পরেই একদিনের দলেরও অধিনায়ক করে দেওয়া হয় মহেন্দ্র সিং ধোনিকে। তার আগেই ওয়েস্ট ইন্ডিজে হওয়া বিশ্বকাপে গ্রুপ লিগও টপকাতে পারেনি রাহুল দ্রাবিড়ের নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দল। হারতে হয়েছে বাংলাদেশের কাছে। অথচ সেই দলে শচীন, দ্রাবিড়ের সঙ্গে ছিলেন কামব্যাক করা সৌরভও। ধোনি অধিনায়ক হতেই দলে অনেক বদল হল। বলা ভাল নির্বাচকদের সঙ্গে রীতিমতো তর্ক করে এই বদল করলেন তিনি।

কী রকম?

ধোনি অধিনায়ক হওয়ার পরেই স্পষ্ট জানালেন, ভারতীয় দলে তিনজন ক্রিকেটারকে তিনি চান না। কারা এই ক্রিকেটার? সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, রাহুল দ্রাবিড় ও অনিল কুম্বলে। কারণ হিসেবে ধোনি বলেন, একজন ব্যাটসম্যান কোনওদিন রান পাবেন, কোনওদিন পাবেন না। একজন বোলার কোনওদিন উইকেট পাবেন, কোনওদিন পাবেন না। কিন্তু একজন ভাল ফিল্ডার প্রতি ম্যাচে দলের জন্য রান বাঁচাবেন। আর এই তিন ক্রিকেটারের ফিটনেস দলে সমস্যা করছে। হাতে থাকা ম্যাচ হাতের বাইরে চলে যাচ্ছে। তাই তাঁদের তিনি দলে চান না। জাতীয় নির্বাচকরা রীতিমতো অবাক হয়ে গিয়েছিলেন ধোনির এই কথায়।

তারপরের ছবিটা সবার জানা। ২০০৭ সালেই শেষবারের মতো নীল জার্সি পরে মাঠে নেমেছিলেন সৌরভ ও কুম্বলে। দ্রাবিড় আরও চার বছর খেলে ২০১১ সালে অবসর নেন। সৌরভের অপসারণের পর কিন্তু বাংলার ক্রিকেটপ্রেমীরা গর্জে উঠেছিলেন ধোনির বিরুদ্ধে। তাঁদের প্রিয় দাদার অপসারণের পিছনে ধোনিকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছিলেন তাঁরা।

কাট টু ২০১৯ সাল। ইংল্যান্ড। ওল্ড ট্র্যাফোর্ড। বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে হারতে বসা ভারতীয় দলকে টেনে তোলার চেষ্টা করছেন ধোনি ও রবীন্দ্র জাদেজা। কিন্তু জাদেজা আউট হয়ে গেলেন মোক্ষম সময়ে। সব দায়িত্ব গিয়ে পড়ল মাহির কাঁধে। ধোনি একটা করে রান নিচ্ছেন আর মাঠে গর্জন উঠছে ‘ধো-নি, ধো-নি।’ হাফসেঞ্চুরি করার পর দর্শকরা এমন হাততালি দিলেন মনে হল ভারত বুঝি বিশ্বকাপ পেয়ে গিয়েছে। কিন্তু তারপরেই অদ্ভুত সমাপতন। ডিপ ফাইন লেগে একটা বল মেরে দু’রান নিতে গিয়েছিলেন ধোনি। কিন্তু তাঁর ব্যাট ক্রিজে পৌঁছনোর আগেই মার্টিন গাপটিলের থ্রো ধরে উইকেটে লাগিয়ে দেন কিউয়ি কিপার হেনরি নিকোলস। আউট হতেই শ্মশানের স্তব্ধতা ভারতীয় সমর্থকদের মধ্যে। মাথা নিচু করে মাঠ ছেড়েছিলেন মাহি। তারপর থেকে আর ক্রিকেটের বাইশ গজে দেখা যায়নি তাঁকে।

ধোনি ফের খেলবেন, কি খেলবেন না, তা নিয়ে জল্পনা চলছে বেশ কয়েক মাস ধরে। তিনি নিজে মুখে কুলুপ এঁটেছেন। কখনও সেনাবাহিনীতে সময় কাটিয়েছেন, তো কখনও পরিবারের সঙ্গে। কিন্তু ব্যাট ধরেননি। বোর্ডের তরফেও এক এক সময় এক এক মন্তব্য করা হয়েছে। কখনও কোচ রবি শাস্ত্রী বলেছেন, আইপিএলে ধোনির পারফরপম্যান্স দেখে টি ২০ বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করা হবে। কখনও আবার জাতীয় নির্বাচকরা জানিয়েছেন, ধোনির ব্যাপারে কোনও আপডেট তাঁদের কাছে নেই।

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বিসিসিআইয়ের মসনদে বসার পর ছবিটা বদলালো। তাঁকে ধোনির ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে সৌরভ সাফ বললেন, ধোনির সঙ্গে এই ব্যাপারে কথা বলবে বোর্ড। তাঁর মতামতের যথেষ্ট গুরুত্ত্ব রয়েছে। তারপরে তিনি এও জানান, ধোনির সঙ্গে বোর্ডের নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে। তিনি কী করতে চান, সেই কথাও বোর্ড জানে। কিন্তু সেটা এখনই বলা যাবে না। সঠিক সময়ে সবাই সব কিছু জানতে পারবেন।

তাহলে কি সঠিক সময় চলে এল? বোর্ডের চুক্তি সরিয়ে নেওয়ার পিছনে কি কোনও ইঙ্গিত কাজ করছে? নাকি যেহেতু বিশ্বকাপের পর থেকে ধোনি খেলেননি, কবে খেলবেন কেউ জানে না, তাই তাঁকে বাদ দেওয়া হয়েছে চুক্তি থেকে। সৌরভ নিজেই বলেছেন, তরুণ ক্রিকেটারদের দিকেই নজর দেবে বোর্ড। সেই নজর দিতে গিয়েই কি উপেক্ষা করা হল ভারতকে দুটি বিশ্বকাপ ও একটি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি দেওয়া অধিনায়ককে?

আরও পড়ুন ধোনিকে ছেঁটে ফেলল বিসিসিআই! চুক্তিতালিকায় ২৭ ক্রিকেটারের মধ্যে নাম নেই মাহির

নাকি ধোনিকে জানিয়ে দেওয়া হল বোর্ডের মনোভাব। প্রাক্তন অধিনায়কের ভবিষ্যৎ নিয়ে বিসিসিআই কী ভাবছে তা জানিয়ে দিয়ে ধোনিকে বলা হল, এরপর কী হবে সেই সিদ্ধান্ত ধোনিকেই নিতে হবে। এর পিছনে কি কিছুটা হলেও সৌরভের হাত রয়েছে? অধিনায়কত্ব পাওয়ার পর ধোনির কথাতেই ওয়ান ডে কেরিয়ার শেষ হয়ে গিয়েছিল ভারতের অন্যতম সফল অধিনায়কের। এবার ক্ষমতা পেয়ে কি সেটা ব্যবহার করলেন সৌরভ? প্রশ্ন তুলছেন ধোনি সমর্থকরা। চুক্তি থেকে বাদ দেওয়াই কি ধোনির বিদায়ের প্রথম ইঙ্গিত? নাকি শেষ?

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More